logo
news image

বাগাতিপাড়ায় পাটের আঁশ ছাড়ানো প্রতিযোগিতা



বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধিঃ
নাটোরের বাগাতিপাড়ায় এক ব্যাতিক্রমী আয়োজন হিসেবে পাটের আঁশ ছাড়ানো প্রতিযোগিতা হয়েছে।

 শনিবার দুপুরে কৃষক কামরুল ইসলামের আয়োজনে সদর ইউনিয়নের কোয়ালিপাড়া গ্রামে এই আয়োজন করা হয়। 

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার কয়েকটি এলাকায় এই ধরনের একটি প্রতিযোগিতার কথা লোকমুখে প্রচার করা হয়।
বিভিন্ন এলাকাগুলোর  নির্দিষ্ট সময়ে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক পাটের আঁশ যারা ছাড়াতে পারে তাদের আহবান করা হয়। ওইদিন আশেপাশের পাঁচটি এলাকার  ছয়জন প্রতিযোগি অংশগ্রহণ করেন। প্রথমে প্রতিযোগিদের মাথায় গামছা পরিয়ে দেয়া হয়। পরে পাটের আঁশ ছাড়ানোর জন্য ৩০ মিনিট সময় নির্ধারণ করে  দেওয়া হয়।

 নির্ধারিত সময়ের মধ্যে মাছিমপুর গ্রামের দিনমজুর মেহেদী হাসান ৩৭ মুঠো পাট ধুয়ে প্রথম হন। ৩৪ মুঠো ধুয়ে দ্বিতীয় হয়েছেন হরিরামপুর গ্রামের শরিফুল ইসলাম এবং ২৬ মুঠো ধুয়ে তৃতীয় হয়েছেন কোয়ালিপাড়া গ্রামের শফিকুল ইসলাম। 

প্রতিযোগিদের মাঝে পুরুষ্কার বিতরণ করা হয়েছে।
প্রথম হওয়া মেহেদী হাসান বলেন, দেশের প্রায়  সকল পর্যায়ের মানুষের মাঝে প্রতিযোগিতার ব্যবস্থা থাকলেও তাদের নিয়ে কোন আয়োজন  হয় না। এই রকম একটা আয়োজনে তিনি তিনি প্রথম হতে পেরে খুব খুশি।

 এইরকম আয়োজনে প্রতিযোগী হিসেবে এটি তাঁর জীবনে প্রথম।
প্রতিযোগিতা দেখতে আসা গালিমপুর এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা রেজাউন্নবী রেনু বলেন, ব্যতিক্রম এই আয়োজনের কথা শুনে তিনি দেখতে এসেছেন। এরকম একটি আয়োজনের জন্য আয়োজককে তিনি ধন্যবাদ জানান।
আয়োজক কৃষক কামরুল ইসলাম বলেন, প্রতিবছর পাটের মৌসুমে দিনমজুরদের মুখে মুখে শোনা যায় ওই গ্রামের অমুক, আর একজন বলে ওই গ্রামের অমুক সবচেয়ে বেশি পাট ধুতে পারে। সেই বিষয়টি থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে এই আয়োজন করা। প্রকৃতপক্ষেই কে সবচেয়ে বেশি পাট ধুতে পারে সেটি দেখা এবং কৃষকদের সামান্য বিনোদন দেওয়ার জন্য। 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোমরেজ আলী বলেন, কৃষিপ্রধান দেশে ফসল চাষের ক্ষেত্রে  দিনমজুররা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাদের জন্য আসলে কেউ কোন কিছু করেনা। এইরকম ব্যতিক্রম আয়োজনে তাঁরা কাজের প্রতি আগ্রহী হবেন। 


সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top