logo
news image

বাঘায় বড়াল নদী রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন


বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি 
রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানীতে বড়াল নদী রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 
আজ রোববার (৩১ জুলাই) সকাল ১১টায় উপজেলার আড়ানী বড়াল নদীর ব্রিজের উপর এই মানববন্ধন অনুষ্টিত হয়।
বড়াল নদী রক্ষা আন্তর্জাতিক কমিটির আহবায়ক অ্যামেরিকা প্রবাসী আজিবর রহমান পাতার নেতৃত্বে ও স্থানীয় ফজলে রাব্বির সার্বিক তত্বাবধায়নে এই মানববন্ধন  অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে বড়াল নদীর সব বাঁধ,স্যুইচ গেট,অবৈধ দখল মুক্ত,নদী রক্ষা ও পূনঃখননের দাবি করা হয়।
আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তারা বলেন,বড়াল নদীকে রক্ষা করতে পারলে মানুষের স্বাভাবিক জীবন-যাত্রার মান উন্নয়নসহ লাখ লাখ মানুষের বেকারত্ব দুর হওয়া সম্ভব। এক সময়ের বহমান বড়াল আর নেই,মৃত প্রায় বড়ালকে বাঁচাতে সবাইকে এগিয়ে আসার আহবান জানান তারা। বক্তারা আরও বলেন,রাজশাহীর চারঘাট থেকে পদ্মার শাখা নদী হিসেবে বড়াল নদীর উৎপত্তি হয়ে রাজশাহীর বাঘা,চারঘাট, নাটোরের বাগাতিপাড়া,বড়াইগ্রাম, পাবনার চাটমোহর,ভাঙ্গুড়া ও ফরিদপুর উপজেলার মধ্য দিয়ে বাঘাবাড়ী হয়ে হুড়া সাগরের বুকে মিশে নাকালিয়ায় যমুনায় পড়েছে। সেই সময় যোগাযোগের সুবিধার জন্য বড়াল নদীর দুই পাড়ে গড়ে উঠেছিল আড়ানী বাজার, রুস্তমপুর পশুহাট,পাঁকা বাজার, জামনগর বাজার,বাশবাড়িয়া বাজার,তমালতলা বাজার, বাগাতিপাড়া থানা,দয়ারামপুর সেনানিবাসসহ গুরুত্বপূর্ণ অসংখ্য স্থাপনা ও বাজার। পানি উন্নয়ন বোর্ড ১৯৮১-৮২ অর্থ বছরে নদীর তীরবর্তী উপজেলাগুলোকে বন্যামুক্ত করার জন্য উৎসমুখ চারঘাটে বাঁধ নির্মাণের মাধ্যমে পানির স্বাভাবিক গতি প্রবাহ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ফলে কৃষক, জেলেসহ লাখ লাখ মানুষ বেকার হয়ে পড়েছে। এই বেকারত্বের হাত থেকে মুক্ত হতে হলে বড়াল পূনঃখনন করার কোন বিকল্প নেই।
বাড়ল নদীর বিভিন্ন স্থানে স্যুইচ গেট ও বাঁধ নির্মানের মাধ্যমে পানির স্বাভাবিক গতি প্রবাহ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন স্থানে  স্যুইচ গেট ও বাঁধ নির্মানের ফলে বড়াল ক্রমান্বয়ে শীর্ণ খালে পরিনত হয়েছে। এখন বড়ালে তলদেশে বিভিন্ন আবাদ করা হচ্ছে। বর্ষায় কিছু পানি জমলেও শুষ্ক মৌসুমের শুরুতেই শুকিয়ে মরা খালে পরিনত হয় বড়াল।
আড়ানী পৌর যুবলীগের সভাপতি কামরুল হাসান জুয়েলের সঞ্চালনায় আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, রাজশাহী জেলা ওয়াকার্স পাটির সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য ফরজ আলী,চারঘাট উপজেলা আ'লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাজিব কুমার প্রামানিক পতুল,নিমপাড়া ইউনিয়ন আ'লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম,সাধারণ সম্পাদক জুলহাস আলী লিটন,আড়ানী পৌরসভার ৩ নম্বর ওযার্ড কাউন্সিলর আফতাব আলী প্রামানিক,সাবেক কাউন্সিলর জিল্লুর রহমান,আড়ানী পৌর সেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক সভাপতি মাজদার রহমান, মনিরুল ইসলাম,করিম উদ্দিন, শিক্ষক আনোয়ার হোসেন লোটাস,মাহাবুবুর রহমান, নিমপাড়া ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ড আ'লীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম জিল্লুর,আড়ানী পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুজ্জামান খান নাইম প্রমুখ। 
মোহাঃ আসলাম আলী 

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top