logo
news image

ইমো হ্যাক করে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার ৫

লালপুর (নাটোর) প্রতিনিধি
নাটোরের লালপুরের মোবাইল ফোনে ইমো হ্যাকিং প্রতারণা চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। শনিবার আদালতের মাধ্যমে তাদের নাটোর জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।
শুক্রবার (২০ মে ২০২২) দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলার রামকৃষ্ণপুর (চিনির বটতলা) এলাকায় অভিযান চালিয়ে হ্যাকারদের গ্রেপ্তার করা হয়।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, উপজেলার রামকৃষ্ণপুর পূর্বপাড়া গ্রামের মো. আ. রহিমের ছেলে মোঃ শাকিল আহমেদ শাকিব (২৩), মো. নাজিম উদ্দিনের ছেলে মো. সেলিম আলী (২০), মো. জিয়ারুল ইসলামের ছেলে মো. শান্ত ইসলাম (১৯), মোহরকয়া ভাঙ্গাপাড়া গ্রামের মৃত নাজিম প্রামাণিকের ছেলে মো. সোহেল রানা (২৮) ও মো. শফিকুল ইসলামের ছেলে মো. মুহাইমিনুল (২৭)। এ সময় তাদের কাছ থেকে ১১টি মোবাইল ফোনের সিমসহ পাঁচটি মোবাইল ফোন, দুটি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়।
সিপিসি-২, নাটোর ক্যাম্প, র‌্যাব-৫, রাজশাহী সূত্র জানায়, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে উপজেলার রামকৃষ্ণপুর (চিনির বটতলা) এলাকায় কোম্পানী অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ফরহাদ  হোসেন এবং কোম্পানী উপঅধিনায়ক সহকারী পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ১১টি মোবাইল ফোনের সিমসহ পাঁচটি মোবাইল ফোন, দুটি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়।
কোম্পানি অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ফরহাদ হোসেন বলেন, তারা দীর্ঘদিন থেকে পরস্পর যোগসাজসে ইলেকট্রনিক ডিভাইস ও ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবহার করে প্রবাসীসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তের ইমো ব্যবহারকারীদের ইমো হ্যাক করতো। এরপর ইমো সফ্টওয়্যারে অবৈধ প্রবেশ করে মেয়ে ও পুরুষের ছদ্মবেশ ধারণ করতো। নিজ পরিচয় গোপন করে বিভিন্ন ছবি ও ভিডিও প্রদর্শন এবং প্রতারণার মাধ্যমে কৌশলে ভিকটিমের পরিচিতজনদের কাছ থেকে প্রতারণার মাধ্যমে বিকাশে অর্থ হাতিয়ে নিতো।
লালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহা. মোনোয়ারুজ্জামান বলেন, এ ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, ২০১৮ এর ২০/২৪/৩৪/৩৫ ধারায় থানায় মামলা হয়েছে। শনিবার আদালতের মাধ্যমে তাদের নাটোর জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top