logo
news image

মানসিক ভারসাম্যহীন রেহেনাকে ফুরে পেলেন তাঁর পরিবার



বাগাতিপাড়া(নাটোর) প্রতিনিধিঃ
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সুবাদে ৮ দিন পর মানসিক ভারসাম্যহীন রেহেনা (৩৪)কে  ফিরে পেলেন তাঁর পরিবার। 

মঙ্গলবার সকালে নাটোরের বাগাতিপাড়ার ইউএনও প্রিয়াংকা দেবী পাল উপযুক্ত প্রমান সাপেক্ষে তাঁর পরিবারের নিকট হস্তান্তর করেন রেহেনাকে। তিনি ভোলা জেলার সদর থানার সিরাজুল ইসলামের মেয়ে। 

জানা গেছে, ৫-অক্টোবর তিনি ঢাকার গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুর ক্যান্টম্যান্ট এলাকার রেহেনার ছোট বোনের বাড়ি থেকে বের হয়ে আর বাড়ি ফিরে যাননি। রেহেনা একজন গার্মেন্টস কর্মী ছিলেন।

 গত শনিবার (৯অক্টোবর) তাঁকে বাগাতিপাড়ার লোকমানপুর এলাকায় পাওয়া যায়। পরে ইউএনও’র পরামর্শে তাঁকে বাগাতিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। আর বাগাতিপাড়ার মানবিক টিম তাঁর একটি ভিডিও করে তাদের নিজস্ব ফেসবুক পেজে সেটি আপলোড করেন। মুহূর্তেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। তারই সুবাদে রেহেনার পরিবার তাঁর সন্ধান পান। এবং মানবিক টিমের সদস্যদের সাথে যোগাযোগ করেন। মানবিক টিমের প্রধান আশরাফুল ইসলাম বলেন, আমরা এই রকম মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষদের নিজ ঠিকানায় পৌঁছে দেয়ার কাজটি কয়েক বছর থেকে করে আসছি। এর আগেও অনেককেই এভাবে আপন ঠিকানায় পৌঁছে দিয়েছি। আজকে এই বোনটিকে তাঁর পরিবারের নিকট তুলেদিতে পেরে খুব ভালো লাগছে। রেহেনার ছোট ভাই আব্দুল্লাহ বলেন, রেহেনা একটি ১৩ বছরের ছেলে রয়েছে। তাঁর বোনের মাথার সমস্যা রয়েছে। এর আগেও দুই বার তিনি বাড়ি থেকে হারিয়ে গিয়েছিল। সেজন্য তাঁর স্বামী আর একটি বিয়ে করে আলাদা সংসার পেতেছেন। সেজন্য ছোট বোনের বাড়িতে থেকে গার্মেন্টসে কাজ করেন। ইউএনও প্রিয়াংকা দেবী পাল বলেন, যে দিন থেকে তাঁকে পাওয়া গেছে সেদিন থেকেই নিয়মিত তাঁর খোঁজ খবর নিয়েছি। সর্বশেষ আজকে উপযুক্ত প্রমান সহ তাঁর পরিবারের সদস্যদের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। আর বিশেষ করে মানবিক টিমের প্রতিটি সদস্যকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। যাদের প্রচেষ্টায় মেয়েটি তাঁর পরিবার ফিরে পেয়েছে। 


সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top