logo
news image

পোশাকে বৈশাখের রং

দোকানে দোকানে হালখাতার আয়োজন, অন্দরে বৈশাখী সজ্জা, মণ্ডা-মিঠাই আর বৈশাখী মেলা। বাংলা নববর্ষ টের পাওয়া যায় উৎসবের আবহে। নতুন বছরের প্রথম দিন উদ্যাপনে সবার নজর কাড়ে নতুন রঙিন পোশাক। লাল-সাদাতেই বৈশাখ বরণে স্বচ্ছন্দ বাঙালি। এবার এর ব্যতিক্রম হচ্ছে না। তবে লাল-সাদার সঙ্গে অন্য রঙের উপস্থিতিও রয়েছে পোশাকে। কেননা, বৈশাখ তো উৎসবের রঙে রঙিন। লাল-সাদার পাশাপাশি আরও নানা রঙে বৈশাখ বরণে প্রস্তুত দেশের ফ্যাশন হাউসগুলো। প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে ক্রেতাদের মধ্যেও। নিজের জন্য পছন্দের পোশাক খুঁজছিলেন রাজধানীর বাসিন্দা সাবিহা আক্তার। তিনি বললেন, বৈশাখের প্রথম দিন হলেও গরম থাকবে অনেক। সে জন্য পোশাকটা আরামদায়ক হওয়া জরুরি। সঙ্গে চাই একটু আধুনিকতা। তাতেই হবে। 

ক্রেতাদের এমন সব ভাবনার ঝলক দেখা গেল আড়ংয়ের পোশাকে। বিক্রয়কর্মী বীথি জানালেন, এবার বৈশাখ সামনে রেখে এসেছে কিছু গাউন ধাঁচের কামিজ। সেখানে লাল আর সাদার প্রাধান্যই থাকছে বেশি। আছে কমলা ও হলুদ রঙের ব্যবহারও। সুতি, সিল্ক, অ্যান্ডি সিল্ক, মসলিন ইত্যাদি কাপড়ের পোশাক রয়েছে এখানে। তাতে থাকছে ব্লক, স্ক্রিনপ্রিন্ট ও স্টিচের কাজ। বৈশাখে পরার মতো কিছু টু-পার্টও পাবেন এই ফ্যাশন হাউসে। যেগুলোর নিচে প্যান্ট অথবা স্কার্ট আর ওপরে কটি। রয়েছে মেয়েদের পাঞ্জাবি।কামিজে লোকজ নকশা। পোশাক: অঞ্জন’সকামিজে লোকজ নকশা। পোশাক: অঞ্জন’স
ব্লক, অ্যাপ্লিক ও এমব্রয়ডারি নকশা করা লাল-সাদা শাড়ি এখনো এগিয়ে আছে বৈশাখী পোশাকের তালিকায়। তবে এর সঙ্গে অবশ্য নজর কাড়ছে অন্য রংগুলোও। ফ্যাশন হাউস লা রিভের ডিজাইনার মুন্নুজান নার্গিস বলেন, ‘বৈশাখে এবার দুটি থিম নিয়ে কাজ করেছি। মঙ্গল শোভাযাত্রার কিছু মোটিফ আর বোহিমিয়ান থিম। বোহিমিয়ান থিমটা মূলত ফ্রি স্টাইল। এটা কখনো যাযাবর জীবনকে তুলে ধরে, আবার কখনো ইচ্ছেমতো যেকোনো কিছু মিলিয়ে পরা যায়। ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর জীবন দ্বারা প্রভাবিত নকশা থাকবে হাতের কাজ বা রং-তুলির আঁচড়ে। লোকজ থিমও চলে এসেছে বোহিমিয়ান থিমের ভেতরে। আমাদের দেশ থেকে যা যা পাওয়া যায়, সেসবই আমাদের বৈশাখ সংগ্রহে ফুটিয়ে তুলেছি। মঙ্গল শোভাযাত্রায় থাকছে থিমে সাইকেল, অটোরিকশা, রিকশার মোটিফ ছাপা নকশা।’
শাড়ি ও কামিজে দেখা যাবে পুরোনো শীতল পাটি, প্রাচীন স্থাপনা, জামদানির মোটিফ, কাঁথা ফোঁড়, জ্যামিতিক ও ফুলেল মোটিফ, হারিকেনের ছাপা নকশা, পাখির নকশা, পেছনে নানা রং দিয়ে সামনে একরঙা ছাপা নকশা। থাকছে হাতার ডিজাইনেও নতুনত্ব। পাওয়া যাবে বেল স্লিভ, ট্রামপেড স্লিভের পোশাক। নেক লাইনে চিক নেক, বোল্ড নেক এসেছে। পাবেন ট্রাউজার প্যান্ট। একরঙা বা স্ট্রাইপের প্যান্টগুলোর সঙ্গে বোহিমিয়ান থিমের টিউনিক হলেই পরিপূর্ণ বৈশাখী আধুনিক লুক। অনেক ফ্যাশন হাউস আলাদাভাবে ব্লাউজও বিক্রি করছে। যেহেতু গরম, তাই হাতকাটা বা ছোট হাতার ব্লাউজই শাড়ি পরার ক্ষেত্রে আরাম দেবে।শাড়ির পাড়ে দেখা যাবে নানা রং। মডেল: প্রিয়ম, শাড়ি: লা রিভশাড়ির পাড়ে দেখা যাবে নানা রং। মডেল: প্রিয়ম, শাড়ি: লা রিভ অঞ্জনসের প্রধান নির্বাহী শাহীন আহমেদ জানান, এবার পোশাকের প্যাটার্ন নিয়েই বেশি কাজ করা হয়েছে। বিশেষ করে নেক লাইন, ক্লিপ ডিজাইন, নিচের ঘের ইত্যাদি। সব ফ্যাশন হাউসই সুতি, ভয়েল নিয়ে বেশি কাজ করছে। তবে রাতে বা বিশেষ ক্ষেত্রে পরার জন্য সিল্ক, অ্যান্ডি সিল্কের তৈরি কাপড়ও আছে।
ইনফিনিটি মেগা মলের পরিচালক নাইমুল হক খান জানান, ইনফিনিটির পোশাক ও শাড়িতে লাল-সাদা এবং চাঁপা সাদা রং প্রাধান্য পেয়েছে। লম্বা কামিজ ও টু-পার্টের কামিজ পাওয়া যাবে।
আজিজ সুপার মার্কেট, নিউমার্কেট, মেট্রো শপিং মল, বসুন্ধরা সিটিসহ বিভিন্ন শপিং মলেই পেয়ে যাবেন পছন্দের পোশাক। মেয়েদের পোশাকের পাশাপাশি ছেলেদের জন্য পছন্দের পাঞ্জাবি ও ফতুয়া পাবেন বাজার ঘুরলে। লুবনানের পরিচালক নাইমুল হক খান জানান, এ বছর আরামের কথা মাথায় রেখে পাঞ্জাবিতে সুতি কাপড়ই প্রাধান্য পাচ্ছে। সাদা, মেরুন, লাল রঙের ওপর হাতের কাজ করা হয়েছে।
এত সব পোশাকের মধ্যে নিজের পছন্দ আর ব্যক্তিত্ব মিলিয়ে বেছে নিলেই সম্পূর্ণ হয় যাবে বৈশাখী সাজপোশাকের আয়োজন।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top