logo
news image

আব্বাকে খুঁজে বেড়ানোর দিন

ফারাজী আহম্মদ রফিক বাবন।।
আজ আব্বাকে খুঁজে বেড়ানোর দিন। প্রকৃতিকে জিজ্ঞেস করতে ওরা বললো, মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘরে যাও। আমি ঐ যাদুঘরে যেয়ে দেখি, দেওয়ালে ১৬ ডিসেম্বর যশোরে বের হওয়া প্রথম বিজয় মিছিলের সন্মুখ সারির নেতৃত্বে আব্বা। মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হলেও আব্বার মুক্তিযুদ্ধ সনদ নেই, নেই কোন স্বীকৃতি! যশোর আইনজীবী সমিতিতে খুঁজে পাই-যেখানে ছয়বারের সভাপতি আব্বা। আর জজকোর্টের পিপি দু'দফায়। সমিতির নেতৃবৃন্দের প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা, সমিতির লাইব্রেরী ভবন আব্বার নামে নামকরণ করার জন্য। কৃতজ্ঞতা যশোর পৌর পরিষদকে, খালদার রোড আব্বার নামে নামকরণ করার জন্য।
আব্বাকে খুঁজে পাই, পিএসসি’র করিডরে। ২০তম বিসিএস মৌখিক পরীক্ষার মুখোমুখী হতে সকালে আমার আগেই যশোর থেকে বিমান যোগে আব্বার পৌঁছে যাওয়া! এরপর সারাদিন একসাথে, ক্লান্ত দুপুরে বার কাউন্সিল গেস্ট হাউসে বিশ্রাম নেয়া।
আব্বাকে খুঁজে পাই, যশোর শহীদ মশিউর রহমান ল'কলেজের আঙিনায়-যেখানে আব্বা ছিলেন অধ্যক্ষ। আব্বাকে খুঁজে পাই লোন অফিস পাড়ার জরাজীর্ণ বাড়িতে।  হাউস বিল্ডিংয়ের লোনে তৈরি হওয়া অসম্পূর্ণ বাড়ির লোন আব্বা শোধ করে যেতে পারেননি। সীমিত আর্থিক সামর্থে আমাদের জন্য এই লোন শোধ করা যতটা না কষ্টের, তারচে' অনেক বেশি প্রশান্তির।  সারাজীবন  সবটা উজাড় করে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি। এমনকি বাজার না করে সেই টাকাটা দিয়ে দিয়েছেন। এমন দরদী  নির্লোভ, সৎ রাজনীতিবিদ কোথায় পাই?
আব্বাকে খুঁজে ফিরি অভয়নগর গ্রামের বাড়িতে। আমাকে সাইকেলে বসিয়ে নিয়ে সন্তপর্ণে মেঠো পথ ধরে এগিয়ে চলার মাঝে। আমার দাদির সাথে কথা বলতে গেলে মা'য়ের সান্নিধ্যে আব্বা সব ব্যস্ততা ভুলে যেতেন। আমার মনে হতো, দাদির মত এত আপন আর কেউ যেন নেই আব্বার।
লোন অফিসের বাড়িতে চার-পাঁচটা দৈনিক ছাড়াও আব্বা রাখতেন বেশ কয়েকটা ম্যাগাজিন। আমাদের জন্যে শিশু,  কিশোর বাংলা আর নবারুণ। ছেলেবেলায় আব্বার দেয়া শিশুতোষ বই জমিয়ে রাখলে একটা লাইব্রেরী হয়ে যেত! আব্বা সব সময় আমাদের  পড়াশোনার উৎসাহ দিতেন, আলোকিত হতে বলতেন। বলতেন, সুন্দর হও, মানুষের সেবা কর।
২০ অক্টোবর ২০০৮ আব্বাকে হারানোর দিন মনে পড়ে যায়। দলমত নির্বিশেষে সকল সংগঠন ঐ দিন আব্বার কফিনটাকে পুস্প স্তবকে কিভাবে শ্রদ্ধা জানিয়েছিল, দু'টো জানাজায় হাজারো মানুষের ঢল নেমেছিল।
এখন আমার আব্বা নেই।  তাই তাকে খুঁজে বেড়াই। এখানে সেখানে সবখানে খুঁজি। কিন্তু আব্বা তো আছেন আমার সাথে,মনের এককোনে। সব সময় আব্বা আমাকে বলে যান, সুন্দর হও, মানুষের সেবা কর। মহান আল্লাহ আব্বাকে রহম করুন, আমাকে শক্তি দিন।

* ফারাজী আহম্মদ রফিক বাবন: অধ্যাপক ও সাংবাদিক, নাটোর।

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top