logo
news image

করোনার সুবাদে লালপুরে ফসলি জমিতে পুকুর খনন

নিজস্ব প্রতিবেদক।।
নাটোরের লালপুরের দুয়ারিয়া ইউনিয়নের কলসনগর কাজীপাড়ায় ৭ বিঘা ফসলি জমি পুকুর কেটে নষ্ট করার পর পাশেই আবার আরও ৪ বিঘা ফসলি জমিতে পুকুর কাটা শুরু করেছে। করোনো পরিস্থিতি‌ মোকাবেলা করতে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন এবং থানা পুলিশসহ প্রশাসনের বিভিন্ন স্তর ব্যস্ত থাকার সুবাদে অসাধু ব্যক্তিরা উর্বর ফসলী জমিতে পুকুর কাটার মহোৎসব শুরু করেছে।
শনিবার (২৫ এপ্রিল ২০২০) বিকেলে সরেজমিন লালপুরের কলস নগর এলাকায় গেলে দেখা যায়, ভেকু দিয়ে মাটি কাটা হচ্ছে এবং সে মাটি ১২টি ট্রাক্টর ট্রলি যোগে বিভিন্ন ইটভাটাসহ ব্যক্তিপর্যায়ের বাড়ি ও প্রতিষ্ঠানে পাঠানো হচ্ছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জমির মালিক আকাত হোসেন ও লালন হোসেন তাদের ১১ বিঘা ফসলি জমি ৭বছরের জন্য পুকুর ব্যবহার ও সকল মাটি বিক্রি করার শর্তে সবুজ সরদারকে লিজ দিয়েছেন। মুঠোফোনে সবুজ সরদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এ কাজ শুরু করার আগে ডিসি অফিস, ইউএনও অফিস, থানা পুলিশ ও সাংবাদিকদের টাকা পয়সা দিয়ে ম্যানেজ করা হয়েছে। কয়েকদিন আগেও নাটোর থেকে দুই টিভি সাংবাদিক এসে মোটা অংকের টাকা নিয়ে গেছে। এছাড়া প্রায় প্রতিদিনই সাংবাদিকরা আসলে কমবশি টাকা দিয়ে বিদায় করা হয়। এক্ষেত্রে আপনারা বাদ যাবেন না। আপনারা অপেক্ষা করেন আমি আধা ঘন্টার মধ্যে আসছি। এক্ষেত্রে উল্লেখ্য যে, সবুজ সরদারের এই অফারকে গ্রহণ না করে সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক বিষয়টি তাৎক্ষণিক মুঠোফোনে জেলা প্রশাসক মোঃ শাহরিয়ার পিএএ ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মূল বানীন দ্যুতীকে জানান।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মূল বানীন দ্যুতী জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
জেলা প্রশাসক মো. শাহরিয়াজ পিএএ জানান, প্রশাসনের সকল কর্মকর্তারা যখন করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় মাঠে দিনরাত কাজ করছে। আর তখন এ সুবাদে অসাধু লোকজন এভাবে ফসলি জমি কেটে নষ্ট করছে। ফসলি জমি রক্ষায় প্রশাসন আগেও যেমন কঠোর ছিল এখনো তেমনি কঠোর থাকবে। সরেজমিনে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top