logo
news image

ছিন্নমূল মানুষের মুখে খাবার তুলে দিচ্ছে আমরা কজন

নিজস্ব প্রতিবেদক।।
নাটোরের লালপুর উপজেলার আব্দুলপুর রেলওয়ে জংশন স্টেশনের অর্ধশতাধিক ছিন্নমূল মানুষকে ১০ দিন ধরে প্রতিদিন দু’বেলা খেতে দিচ্ছে স্টেশন সংলগ্ন গোসাইপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘আমরা ক’জন’। ছিন্নমূল মানুষের মধ্যে রয়েছে ভাসমান নারী, পুরুষ, শিশু, ট্রেনের ভিক্ষুক, হোটেল কর্মচারী, হকার। যাদের অধিকাংশই স্টেশনের প্লাটফরমে রাত কাটান।
স্থানীয়রা জানান, দেশব্যাপী করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া রোধে ট্রেন চলাচল বন্ধ করা হলে আব্দুলপুর স্টেশন এলাকাতেই আটকে পড়ে অর্ধশতাধিক গৃহহীন ছিন্নমূল মানুষ। আগে তারা সবসময় স্টেশনের প্লাটফরমে অবস্থান করলেও বর্তমানে প্রশাসনের তৎপরতায় তারা স্টেশনেও থাকতে পারছে না আবার খাদ্যের জন্য কোন এলাকায় যেতেও পারছে না। হোটেলসহ অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন তারা। সারাটা দিন আশেপাশের কোন বাগান অথবা গাছতলায় সময় কাটিয়ে রাতে তারা স্টেশন এলাকাতেই থাকছেন। গোসাইপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামের কতিপয় যুবক সংগঠিত হয়ে ওই সব মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তারা প্রতিদিনই দুপুর ও রাতে পেট পুরে খাবারের ব্যবস্থা করেছেন তাদের ।
আমরা ক’জন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্য ওবায়দুল্লাহ জানান, তাদের সংগঠনের কোন সভাপতি সম্পাদক নেই। অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর জন্যই তারা আমরা ক’জন নামে একত্রিত হয়েছেন। তারা ১০ দিন যাবৎ তাদের নিজস্ব অর্থায়নে প্রায় অর্ধশতাধিক পথশিশু, ভিক্ষুক, উন্মাদ, এতিম অসহায় ছন্নছাড়া ঠিকানাবিহীন মানুষদের জন্য দুপুর ও রাত্রে দুইবেলা খাবারের ব্যবস্থা করেছেন। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত অসহায় মানুষদের জন্য স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে দুইবেলা রান্না করা খাবার বিতরণের চেষ্টা চালিয়ে যাবেন।
আব্দুলপুর স্টেশনে আটকেপড়া পাবনার রাসু (৪০) একটি হোটেল কাজ করতেন। হোটেলেই রাতে ঘুমাতেন। করোনা সংক্রমণ রোধে সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক হোটেল বন্ধ হয়ে গেলে তার আয় রোজগার বন্ধ হয়ে যায়। হারিয়ে যায় রাত কাটানোর জায়গাটুকুও। রাসু জানান, ট্রেন বাস বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বাড়ি যেতে পারছি না। কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় না খেয়ে দিন কাটাতে হতো এলাকার মানুষ দু’বেলা খাবারের ব্যবস্থা করায় কোন রকমে বেঁচে আছি।
মাদারীপুরের মৌসুমী শ্রমিক ইদ্রিস আলী (৬০), বগুড়ার আফজাল (৬৮), গাইবন্ধার ভিক্ষুক আব্দুস সোবাহান (৬৫), নওগাঁর মিনু বেগমসহ শতাধিক ভাসমান মানুষ দু’বেলা খাবার খেয়ে আব্দুলপুর স্টেশন এলাকায় রাত কাটাচ্ছেন।

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top