logo
news image

ঢাকা রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়

নিজস্ব প্রতিবেদক, টাঙ্গাইল।  ।  
মাদক উদ্ধার, মামলার রহস্য উদঘাটন, ওয়ারেন্ট তামিল, সুষ্ঠ ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা, অপরাধ নিয়ন্ত্রন, দক্ষতা, কর্তব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃংখলামুলক আচরনে প্রশংসিত হয়ে টাঙ্গাইল জেলার আইনশৃংখলা সন্তোষজনক হওয়ায় টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বিপিএম আবারও ঢাকা রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপার হয়েছেন।
বৃহস্পতিবার (২৪ অক্টোবর) ঢাকা রেঞ্জের সম্মেলন কক্ষে সঞ্জিত কুমার রায়ের হাতে শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপারের ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট তুলে দেন ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমান বিপিএম (বার) পিপিএম (বার)। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি (অপরাধ) মো. আসাদুজ্জামান বিপিএম (বার), অতিরিক্ত ডিআইজি (অপারেশনস্ এন্ড ইন্টেলিজেন্স) জিহাদুল কবির বিপিএম, পিপিএম ও ঢাকা রেঞ্জের সহকারি পুলিশ সুপার মো. মাহিন ফরাজী, ঢাকা রেঞ্জের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও রেঞ্জাধীন ১৩টি জেলার পুলিশ সুপারবৃন্দ।
উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতিস্বরুপ এবং গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রন, কর্তব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃঙ্খলামূলক আচরণের স্বীকৃতি স্বরুপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টাঙ্গাইল জেলার পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়কে বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ সম্মাননা পদক “বিপিএম-সেবা” পদকে ভূষিত করেন। এ বছর এপ্রিলে ঢাকা রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপার হিসেবেও পুরস্কার লাভ করেন তিনি।
সঞ্জিত কুমার রায় টাঙ্গাইল পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদানের পর থেকেই যানজট নিরসন, মাদক ব্যবসায়ী, চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণসহ তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে চাঞ্চল্যকর ক্লুলেস মামলার রহস্য উদঘাটন করেছেন। এর আগে গুরুত্বপুর্ন মামলার রহস্য উদঘাটন, অসীম সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতির জন্য তিনি বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ সম্মাননা পদক বিপিএম-সেবা পদকে ভূষিত হন।
নিজের পুরস্কার প্রাপ্তি নিয়ে পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বিপিএম বলেন, ‘এ অর্জন আমার একার নয়। টাঙ্গাইল জেলা পুলিশের প্রতিটি সদস্য এ সফলতার ভাগিদার।’ তিনি আরও বলেন, ‘সকলের ঐকান্তিক চেষ্টায় এ সফলতা অর্জন সম্ভব হয়েছে। আমার এ পুরস্কার টাঙ্গাইল বাসীকে উৎসর্গ করলাম।’

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top