logo
news image

লালপুরে খেজুরের রস সংগ্রহের প্রস্তুতি

নিজস্ব প্রতিবেদক।  ।  
আসন্ন শীত মৌসুমকে কেন্দ্র করে নাটোরের লালপুর উপজেলার ১০ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভা এলাকায় শুরু হয়েছে মিষ্টি খেজুরের রস সংগ্রহের প্রস্তুতি। গৌরব আর ঐতিহ্যের প্রতীক মধু বৃক্ষ এই খেজুর গাছ। গ্রামীণ জীবনের প্রত্যহিক উৎসব শুরু হতে যাচ্ছে খেজুর গাছকে ঘিরে। শীত কাল আসলে বাড়ে অযন্ত ও অবহেলায় বেড়ে উঠা এই খেজুর গাছের কদর। খেজুর গাছ সু-মিষ্টি রস দেয়। রস থেকে তৈরী হয় ঝলা ও পাটারী গুড়। যার ঘ্রানে মৌ-মৌ হয়ে উঠে এই এলাকার বাতাস। পুরো শীত মৌসুমে চলে সু-স্বাদে ভরা বিভিন্ন প্রকারের পিঠা। পায়েস আর পুলিসহ নানান প্রকারের পিঠা খাওয়ার আয়োজন। শীতের সকালে মিষ্টি রদ্রে খেজুরের রস আর মুড়ি খাওয়ার কিজে মজা আর তৃপ্তি আহ্? শহর থেকে অনেকে গ্রামের নিজ-নিজ বাড়ীতে বেড়াতে আসে এই শীত মৌসুমে। গ্রামের বাড়ীতে-বাড়ীতে জামাই, মেয়ে, নাতনীদের নিয়ে শীত উৎসবকে ঘিরে তৈরী হয় নানান প্রকারের পিঠার আয়োজন। তা ছাড়া শীত মৌসুমের পিঠা উৎসব যেন জমেইনা। পিঠা তৈরীকে কেন্দ্র করে গ্রামের বাড়ীতে-বাড়ীতে আনান্দ উৎসবে মুখরিত হয়ে উঠে পুরো অঞ্চল। আর পুরো শীত মৌসুমে চলে বিভিন্ন প্রকারের পিঠা খাওয়ার ধুম। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বাড়ীর উঠানে শীতের সকালে খেজুরের রস আর মুড়ি খাওয়ার বসে আসর। খেজুরের রসের ঝলা গুড় দিয়ে চাউল ও গমের আটা সিদ্ধ করা তৈরী রুটি খেতে কিজে মজা তা বলে বুঝানো যাবেনা।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা এলাকায় প্রায় ৩৩ হাজার কৃষি পরিবার আছে। সড়ক পথ,রেল লাইনের দুই ধার, জমির আইল, বাড়ীর আঙ্গীনা সহ বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে আছে প্রায় ২ লাখ ৯৫ হাজার খেজুর গাছ। একজন গাছি প্রতিদিন প্রায় ৫০ থেকে ৫৫ টি খেজুর গাছের রস সংগ্রহ করতে পারে। শীত মৌসুম ভিত্তিক প্রায় ৩ হাজার পরিবার খেজুর গাছের উপর নির্ভরশীল। একজন গাছি শীত মৌসুমে ১২০ দিনে একটি গাছ থেকে প্রায় ২০ থেকে ২৫ কেজি গুড় পেয়ে থাকে। খেজুরের গাছ ফসলের কোন প্রকার ক্ষতি করেনা । এই গাছের জন্য বাড়তি কোন খরচ করতে হয়না। ঝোপ, জংগলে কোন প্রকারের যতন্ন ছাড়াই বড় হয়ে উঠে খেজুরের গাছ। শুধু মাত্র শীত মৌসুম আসলেই নিয়মতি পরিস্কার করে রস সংগ্রহ করা হয়। রস, গুড় ছাড়াও খেজুর গাছের পাতা দিয়ে মাদুর তৈরী ও জ্বালানি হিসিবে ব্যাবহার হয়। খেজুর গাছ কেটে বাড়ীর তীর তৈরী করা হয়।
লালপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম বলেন, আমরা কৃষকদের খেজুর গাছ লাগানোর পরামর্শ দিয়ে থাকি। যা আপনাদের রস ও গুড়ের চাহিদা মিটাবে । এছাড়াও খেজুরের রস ও গুড় বিক্রয় করে আপনাদের সংসারে আর্থিক সচ্ছলতা বয়ে আনবে।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top