logo
news image

১২ আগস্ট পবিত্র ঈদুল আযহা

নিজস্ব প্রতিবেদক।।
বাংলাদেশের আকাশে শুক্রবার (২ আগস্ট) ১৪৪০ হিজরি সনের পবিত্র যিলহজ্জ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে আগামীকাল শনিবার থেকে পবিত্র যিলহজ্জ মাস গণনা শুরু হবে। এই প্রেক্ষিতে, আগামী ১২ আগস্ট সোমবার সারাদেশে পবিত্র ঈদুল আযহা পালিত হবে।
শুক্রবার (২ আগস্ট) সন্ধ্যায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন বায়তুল মুকাররমস্থ সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ও জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি এডভোকেট শেখ মোঃ আব্দুল্লাহ।
সভায় ধর্মসচিব মোঃ আনিছুর রহমান, তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ আজহারুল হক, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্ম সচিব মোঃ খলিলুর রহমান, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মু. আঃ হামিদ জমাদ্দার, ওয়াক্ফ প্রশাসক মোঃ শহীদুল ইসলাম, অতিরিক্ত প্রধান তথ্য কর্মকর্তা ফায়জুল হক, বাংলাদেশ টেলিভিশনের পরিচালক মোঃ জহিরুল ইসলাম মিয়া, ঢাকা আলিয়া মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল প্রফেসর মোঃ আলমগীর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া সভায় বিশেষজ্ঞ আলেম-ওলামা উপস্থিত ছিলেন।
সভায় ১৪৪০ হিজরি সনের পবিত্র যিলহজ্জ মাসের চাঁদ দেখা সম্পর্কে সকল জেলা প্রশাসন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন-এর ৬৪ জেলা কার্যালয়, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের ৪৭টি কেন্দ্র এবং মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠান হতে প্রাপ্ত তথ্য নিয়ে পর্যালোচনা করে সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত হয় যে, শুক্রবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশের আকাশে পবিত্র যিলহজ্জ মাসের চাঁদ দেখা গেছে।
এ দিকে বৃহস্পতিবার (১ আগস্ট) সৌদি আরবে পবিত্র জিলহজ্ব মাসের চাঁদ দেখা গেছে। তাই সৌদিসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে আগামী ১১ আগস্ট পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। আর পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হবে ১০ আগস্ট। হিজরি সন অনুযায়ী ঈদুল আযহা জ্বিলহজ্বের ১০ তারিখে উদযাপিত হয়। ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের কাছে এই দিনটি খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। ধর্মপ্রাণ মুসলমানেরা এই দিনটিতেই মহান আল্লাহ তায়ালার উদ্দেশ্যে পশু কুরবানী করে থাকেন।
হজরত ইব্রাহিম (আ.) এর সুন্নত হিসেবে এই কুরবানী দিয়ে থাকেন মুসলমানরা। আল্লাহ তায়ালার নির্দেশে ইব্রাহিম (আ.) তার শিশু পুত্র ইসমাঈল (আ.) কে কুরবানী করতে চেয়েছিলেন। তবে আল্লাহ তায়ালা খুশি হয়ে ইসমাঈলের পরিবর্তে একটি দুম্বা কুরবানী হিসেবে কবুল করেন। সেই ত্যাগের মহিমায় উদ্বুদ্ধ হয়ে মুসলমানদের জন্যও কুরবানীকে একটি ইবাদত হিসেবে গণ্য করা হয়।
এছাড়াও এই জিলহজ্ব মাসেই সামর্থ্যবান মুসলমানরা ইসলামের পাঁচ স্তম্ভের একটি হজ পালন করে থাকেন। আরাফাতের ময়দানে অবস্থান, পবিত্র কাবা ঘর তওয়াফসহ বেশ কয়েকটি আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমে এই হজ পালন করে থাকেন মুসলমানরা।

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top