logo
news image

বহু প্রতিক্ষ্যর পর এবার বেতন কাঠামো নির্ধারণ হচ্ছে বেসরকারি বীমা কোম্পানিগুলোতে

বীমা শিল্পে ইতিবাচক পরিবরতন আনবে বেতন কাঠামো নির্ধারণ। দেশের বেসরকারি বীমা কোম্পানিগুলোর বেতন-ভাতা খাতে শৃঙ্খলা আনতে বেতন কাঠামো নির্ধারণ করে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ) । একইসঙ্গে কোম্পানিগুলোর সাংগঠনিক কাঠামোও নির্ধারণ করা হবে।

এ বেতন কাঠামো কেমন হবে সে বিষয়টি নির্ধারণ করতে কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। নিয়ন্ত্রক সংস্থার সাথে লাইফ বীমা কোম্পানিগুলোর সর্বশেষ সমন্বয় সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ২৮ জানুয়ারি এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স এসোসিয়েশন (বিআইএ), বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স ফোরাম (বিআইএফ) ও করপোরেশনসহ কোম্পানিগুলোর পক্ষ থেকে বাছাইকৃত প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে বেতন কাঠামো নির্ধারণী কমিটি গঠন করা হবে। ওই কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে সাংগঠনিক কাঠামো ও বেতন কাঠামোর বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

আইডিআরএ'র সদস্য গকুল চাঁদ দাস জানান, বেতন কাঠমো নির্ধারণের জন্য কমিটি গঠনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে এখনো কমিটি গঠন করা হয়নি। কমিটি গঠনের পর তারা বিষয়টি সার্বিকভাবে পর্যালোচনা করে সুপারিশ করবে। সুপারিশের ভিত্তিতে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে। লাইফ ও নন-লাইফ উভয় খাতের জন্যই বেতন কাঠামো নির্ধারণ করা হবে, জানান নিয়ন্ত্রক সংস্থার এ সদস্য।

বীমা সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বেতন ও সাংগঠনিক কাঠামোর বিষয়ে সিদ্ধান্তটি বাস্তবায়ন হলে বীমা খাতের জন্য এটি হবে যুগান্তকারি ঘটনা। এর ফলে শিক্ষিত, দক্ষ ও যোগ্যতাসম্পন্ন জনবল আসবে বীমা খাতে। কোম্পানিগুলোর মূখ্য নির্বাহী থেকে শুরু করে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে যে বেতন বৈষম্য আছে তা দূর হবে। একইসঙ্গে ব্যাংকিং বা অন্যান্য খাতের মতো বীমাখাতেও যোগ্যরা আসতে আগ্রহী হবে। যা সার্বিকভাবে বীমা খাতের উন্নয়নে কাজ করবে।

এ বিষয়ে সন্ধানী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের মূখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা আহসানুল ইসলাম টিটু বলেন, বীমা খাতের জন্য আমরা একটা অভিন্ন সাংগঠনিক কাঠামো তৈরি করতে চাচ্ছি। যে কাঠামো এই খাতে লোকবল বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে। কোম্পানিগুলোতে যারা এমপ্লয়ি আছে তাদের বেনিফিট এবং স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করবে। কোম্পানিগুলোর কোন পদে বা কার বেতন কেমন তা জানতে পারলে যোগ্যতাসম্পন্ন লোকজনও এখানে আসবে।

তিনি বলেন, বীমা কোম্পানির মূখ্য নির্বাহী (সিইও) হওয়ার জন্য নিচের পদে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা প্রয়োজন। কিন্তু একেক কোম্পানির এ অভিজ্ঞতা একেক রকম। তাই একটা ইউনিফর্ম হলে কোন লেভেলের লোক পরবর্তীতে সিইও হবে সেটি নির্ধারণ সহজ হবে। এসব বিষয় মাথায় রেখেই, বীমা খাতের উন্নয়নের জন্য এবং খাতটিকে এগিয়ে নেয়ার জন্য একটি অভিন্ন সাংগঠনিক কাঠামো আমরা চাচ্ছি।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top