logo
news image

ঈশ্বরদীর সাংবাদিকের হারিয়ে যাওয়া টাকা নির্লোভ কলেজ ছাত্র আরোজ

ঈশ্বরদী (পাবনা) সংবাদদাতাঃ
ভোরের পাতার ঈশ্বরদীর সাংবাদিক ময়নুল ইসলাম মিন্টুর হারিয়ে যাওয়া মানিব্যাগ ফেরত দিলেন লোভ ও লালসাহীন কলেজ ছাত্র আরোজ মালিথা। ঈশ্বরদী সরকারি কলেজের দ্বাদশ বিজ্ঞানের ছাত্র আরোজ প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় অটো রিকশার মধ্যে তিনি কুড়িয়ে পান একটি মানিব্যাগ। মানিব্যাগটি পেয়ে সে খুলে দ্যাখে নগদ ১৯,০০০ টাকা এবং গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র রযেছে। প্রাইভেট শিক্ষককে সে বিষয়টি জানালে শিক্ষক ব্যাগের মধ্যে ভোরের পাতা পত্রিকার পরিচয়পত্র দেখতে পান। শিক্ষক কানু বাবু বিষয়টি ঈশ্বরদী প্রেসক্লাব সভাপতিকে অবহিত করলে তিনি ওই ছাত্রকে তাঁর কাছে ডেকে আনেন। সভাপতি স্বপন কুন্ডু মানিব্যাগ হারানো মিন্টুকেও খবর দেয়। মিন্টু এলে আরোজ নিজ হাতে টাকাসহ মানিব্যাগটি ফেরত দেন।
সাংবাদিক মিন্টুসহ ঈশ্বরদী প্রেসক্লাবের সাংবাদিকরা আরোজ মালিথার সততায় মুগ্ধ। আর এই ছেলের সততয় গর্বিত হয়েছেন তার পিতা ঈশ্বরদী সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি ও  বর্তমান আওয়ামী লীগ নেতা মুরাদ মালিথা।
ময়নুল ইসলাম মিন্টু জানান, ‘তাঁর মানি ব্যাগে নগদ ১৯ হাজার টাকা, ট্রেনের কয়েকটি টিকিট ও গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র ছিল। ঈদের আগে টাকা হারিয়ে যাওয়ায় চোখে অন্ধকার দেখছিলাম। কিভাবে পরিবার-পরিজন নিয়ে ঈদ পার করবো। এতোগুলো টাকা পেয়ে কেউ যে ফিরিয়ে দেবে এটা বিশ্বাসই হচ্ছে না। আরোজ মালিথার সততায় মুগ্ধ হয়ে মিনটু তাঁর প্রতি বিশেষভাবে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, দোয়া করি আরোজ যেন এই পৃথিবীতে আলোকিত মানুষ হিসেবে পরিচিত লাভ করেন।
কলেজ ছাত্র আরোজ মালিথা জানান, অন্যের টাকার প্রতি তাঁর কোন লোভ নেই। সমাজের অনেক শ্রেনীর মানুষ আছে। কে কি অবস্থায়, কি কাজের জন্য এবং কিভাবে টাকাগুলো যোগাড় করেছেন তা জানিনা। কুড়িয়ে পাওয়া টাকা মালিকের হাতে তুলে দিতে পেরে আমার ভীষণ ভাল লাগছে।
আরোজের বাবা মুরাদ মালিথা জানান, এর আগে আরোজ ঈশ্বরদী পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদকে বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয় হতে সম্মাননার এক ভরি ওজনের সোনার নৌকাও সে কুড়িয়ে পেয়ে ফিরিয়ে দেয়। ছেলের ধারাবাহিক সততায় সত্যিই আমি এবং পরিবারের সবাই মুগ্ধ ও গর্বিত।


সাম্প্রতিক মন্তব্য