logo
news image

অবশেষে ঈশ্বরদী থানায় ধর্ষণ চেষ্টার মামলাটি নথিভুক্ত হলো

ঈশ্বরদী (পাবনা) সংবাদদাতাঃ
৬১ বছরের এক বৃদ্ধ কর্তৃক তৃতীয় শ্রেনীর এক শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের প্রচেষ্টার মামলা অবশেষে শুক্রবার রাতে নথিভূক্ত হয়েছে। ঘটনা ধামাচাপা দিতে শিশুটির পরিবারকে বিগত দু’দিন ধরে দেওয়া হচ্ছিল হুমকি ও ধামকি। পাশাপাশি আর মিমাংসার প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছিল। কিন্তু সকল প্রচেষ্টার মধ্যেই শুক্রবার রাতে থানায় ধর্ষণ চেষ্টার মামলাটি নথিভুকরা হয়। মামলা নং-৭৯। মামলাটি দায়ের করেন ভিক্টিম শিশুর বাবা জহুরুল আলী। ঘটনাস্থল ঈশ^রদী ছলিমপুর ইউনিয়নের চরমিরকামারী (মাথালপাড়া) গ্রাম। এঘটনায় বৃহস্পতিবার ঈশ্বরদী হাসপাতালে ডাক্তারী পরীাও সম্পন্ন হয়।
মামলার এজাহার, প্রতিবেশী ও জনপ্রতিনিধিদের সাথে কথা বলে জানা গত ৩০ মে বৃহস্পতিবার দুপুর পোনে ১২টার দিকে প্রতিবেশি মৃত জব্বার আলীর ছেলে জিয়াউর রহমান ওরফে আবেদ আলী মাষ্টার (৬১) বাদী জহুরুলের বাড়িতে প্রবেশ করেন। এসময় বাড়ির সকলে পাশের লিচু বাগানে লিচু ভাঙ্গার কাজে ব্যস্ত ছিলেন। বাড়িতে ওই শিশু শিার্থীকে একা পেয়ে বৃদ্ধ নরপশু আবেদ মাষ্টার চকলেট দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ঘরের মধ্যে নিয়ে মুখ চেপে বিবস্ত্র করে ধর্ষণের প্রচেষ্টা চালায়। এসময় শিশুটির মা ও মামী বাড়িতে পানি নিতে আসলে মেয়ের গোংরানির শব্দ শুনে ঘরের মধ্যে গিয়ে আবেদ মাষ্টারকে হাতে নাতে ধরে ফেলেন। কিন্তু আবেদ মাষ্টার সুকৌশলে ঘটনাস্থল হতে পালিয়ে যেতে সম হয়। পরে ঘটনা ধামা চাপা দিতে শিশুর পরিবারকে হুমকি,ধামকি দিতে থাকে। একই সাথে এলাকার কতিপয় প্রভাবশালীদের প হতে বিষয়টি মিমাংসা করার জন্য গত শুক্রবার এক শালিস বৈঠকও বসানোর চেষ্টা করা হয়।
ঈশ^রদী থানার অফিসার ইনচার্জ বাহাউদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, একজন বয়স্ক মানুষ এভাবে কচি  শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা করতে পারে, তা প্রথমে বিশ্বাস করতে পারেনি। আসামীকে গ্রেফতারের প্রচেষ্টা চলছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

সাম্প্রতিক মন্তব্য