logo
news image

ভারতের লোক সুরনন্দন পুরষ্কার পেলেন আবুল হোসেন

প্রাপ্তি প্রসঙ্গ ডেস্ক।  ।  
লোক সংগীতের প্রতি আগ্রহ ও অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ 'সুরনন্দন ভারতী' কর্তৃক সর্বোচ্চ সম্মাননা 'লোক সুরনন্দন আওয়ার্ড' এর জন্য মনোনিত হয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) এর শিক্ষক সমিতির সাবেক সাধারন সম্পাদক ও সদ্য বিদায়ী সমাজকর্ম বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোঃ আবুল হোসেন। তিনি এই পুরষ্কার সংক্রান্ত চিঠি পেয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন।
সুরনন্দন ভারতী ১৯৯৪ সালের প্রতিষ্ঠিত হয়। যার বিস্তৃতি ভারতের ১৬টি রাজ্যে। তারা নাচ, গান, চিত্রাঙ্গন, আবৃত্তি, নাটক, লোক সংগীত, সাংস্কৃতিক সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের স্কীকৃতি স্বরূপ এ পুরষ্কার প্রদান করে থাকেন। ১৩ ও ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৮ দু’দিন ব্যাপি অনুষ্ঠিত তাদের সর্বভারতীয় “সিলভার জুবলী উদযাপন” অনুষ্ঠানে কলকাতার “বিড়লা একাডেমী অব আর্টস এন্ড কালচারাল সেন্টার” এ আনুষ্ঠানিকভাবে এই সম্মাননা তুলে দেয়া হয়।
অধ্যাপক ড. মোঃ আবুল হোসেন তার পিতামহ আলহাজ্ব ময়েজ উদ্দিন এর কাছে সংগীতের উপর হাতেখড়ি নেন এবং জামালপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমী থেকে সংগীতের উপর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। সেইসাথে গড়ে তোলেন 'শাহজামাল শিল্পী গোষ্ঠি'। তিনি বাংলাদেশ, যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার বিভিন্ন প্রদেশে লোক সংগীত পরিবেশন করে সুনাম অর্জন করেছেন। তিনি আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক বোর্ডের সদস্য ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উপদেষ্টা ছিলেন এবং বর্তমানে তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) এর সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক স্ট্যান্ডিং কমিটির আহ্বায়ক।
অধ্যাপক ড. মোঃ আবুল হোসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনষ্টিটিউট থেকে অর্নাস (১ম শ্রেণিতে ২য় স্হান) এবং মাস্টার্স (১ম শ্রেণিতে ১ম স্হান) ডিগ্রি অর্জন করেন। এছাড়াও তিনি কানাডার কার্লটন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স ও Wilfrid Laurier University থেকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজকর্ম বিভাগে কর্মজীবন শুরু করেন।  বর্তমানে তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগে অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত আছেন।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top