logo
news image

বাগাতিপাড়ায় সভাপতির বিরুদ্ধে জিডির প্রতিবাদে বণিক সমিতির মানববন্ধন

বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধি
নাটোরের বাগাতিপাড়ায় দয়ারামপুর বণিক সমিতির সভাপতি ও সহসভাপতির বিরুদ্ধে সাধারন ডায়েরী (জিডি) করেছেন ওই বাজারের এম কে শপিং কমপ্লেক্স ভবন মালিক মানিক সনাতন কুন্ডু। এর প্রতিবাদে এবং জিডি প্রত্যাহারের দাবিতে রোববার বিকালে ওই বাজারের ৬শ’ দোকানী তাদের দোকান-পাট বন্ধ রেখে বিক্ষোভ ও মানব বন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে। গত ২ ফেব্রুয়ারি মানিক সনাতন কুন্ডু জিডিটি করেন। 
দয়ারামপুর বাজারের বণিক সমিতির সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুর ইসলাম মিঠু জানান, ওই বাজারের দুই তলা বিশিষ্ট এম কে শপিং কমপ্লেক্সে প্রায় ৪০টি দোকান ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করেন ব্যবসায়ীরা। কিন্তু ওই সব দোকানীদের প্রতিবছর ভাড়া বৃদ্ধি, তাদের ওপর নির্যাতন, কোন নোটিশ ছাড়াই যখন তখন দোকান থেকে বের করে দেওয়াসহ বিভিন্ন নির্যাতন করেন ওই শপিং কমপ্লেক্সের মালিক মানিক সনাতন কুন্ডু। এ ঘটনায় কয়েক মাস পূর্বে সব দোকানীরা একযোগে তার ভবন ছেড়ে দেন। এরপর থেকে কেউ তার ভবনের দোকান ভাড়া নেন না। গত ২ ফেব্রুয়ারি বণিক সমিতির একটি সভা অনুষ্ঠানের জন্য মাইকিং করা হয়। বণিক সমিতি এমকে শপিং কমপ্লেক্সের মালিকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে এ সভার আয়োজন করছে এমন সন্দেহে ওই দিনই সমিতির নেতাদের বিরুদ্ধে তিনি জিডি করেন। জিডিতে তার ভবনের দোকান ভাড়া না নিতে ব্যবসায়ীদের প্ররোচনার দেওয়া হচ্ছে এমন অভিযোগ করেন তিনি। এতে সমিতির সভাপতি মাহবুর ইসলাম মিঠু, সহ-সভাপতি আনসার আলী মন্ডলের নামসহ ছয়-সাতজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। এ ঘটনা জানতে পেরে দয়ারামপুর বাজারের বণিক সমিতির সাড়ে চারশ’ সদস্যসহ প্রায় ৬শ’ দোকানীরা বিক্ষুব্ধ হয়। অনতিবিলম্বে জিডি প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে রোববার বিকালে বিক্ষোভ করে। এর আগে সকাল থেকেই বিক্ষোভ কর্মসূচীতে অংশ নিতে বণিক সমিতির পক্ষ থেকে বাজার এলাকায় মাইকিং করা হয় । 
এম কে শপিং কমপ্লেক্সের দোকানী ইমদাদুল হক মিলন জানান, ওই কমপ্লেক্সে একটি দোকান ভাড়া নিয়ে তিনি  ছিট-কাপড়ের ব্যবসা করতেন। কিন্ত গত তিন বছরের মধ্যেই মালিক প্রায় দ্বিগুন ভাড়া বাড়িয়েছেন। সিকিউরিটি অর্থের পরিমানও বাড়িয়ে দিয়ে তা আদায় করেন। কেউ প্রতিবাদ করলেই তিনি তাকে দোকান ছেড়ে চলে যেতে বলতেন। পাঁচ মাস পূর্বে পাঁচ দোকানীর সঙ্গে এসব নিয়ে বিতর্ক দেখা দেয়। সেসময় ওই পাঁচ দোকানীকেও দোকান ছেড়ে দিতে চাপ দিলে একযোগে ৪০ জন দোকানী তার ভবন ছেড়ে দেয়। এরপরেও আবার বণিক সমিতির নেতাদের বিরুদ্ধে তিনি থানায় জিডি করেন।  
এদিকে রোববার বিকালে প্রায় ঘন্টা দেড়েক দোকান-পাট বন্ধ রেখে জিডি প্রত্যাহারের দাবিতে বিকাল ৫টায় দয়ারামপুর বাজারে বিক্ষোভ করে। পরে ওই বাজারের প্রধান সড়কে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে দোকানীরা। মানব বন্ধনে বক্তব্য দেন বণিক সমিতির সভাপতি দয়ারামপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুর ইসলাম মিঠু, সহসভাপতি আনসার আলী মন্ডল, সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব আব্দুল ওয়াহাব প্রমুখ। বক্তারা দ্রুত সময়ের মধ্যে জিডি প্রত্যাহারের দাবি জানান। অন্যথায় বৃহত্তর আন্দোলন কর্মসূচী নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন। এছাড়াও সকল ব্যবসায়ীদের বণিক সমিতির নিয়ম নীতি মেনে চলতে অনুরোধ করেন। 
এব্যাপারে এম কে শপিং কমপ্লেক্সের মালিক মানিক সনাতন কুন্ডুর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে সন্ধ্যার আগে কথা বলতে পারবেন না জানিয়ে দুঃখ প্রকাশ করে ফোন কেটে দেন। 
এ বিষয়ে কথা বলতে থানার ওসি’র মোবাইলে বেশ কয়েকবার ফোন করেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। 

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য