logo
news image

বদলে যাবে কুয়াকাটার চেহারা

আরিফ রহমান।  ।  
প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি কুয়াকাটাকে আধুনিক পর্যটনকেন্দ্রে রূপান্তরে সরকার মহা-পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। এর মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে সেতুসহ মহাসড়ক নির্মিত হয়েছে। ইতোমধ্যে কুয়াকাটার মাস্টারপ্ল্যান চূড়ান্ত করা হয়েছে। চমকে দেয়ার মতো। উদ্বেলিত হওয়ার মতো পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। কুয়াকাটার উন্নয়নে লতাচাপলী মৌজার দশ হাজার দুই শ’ ৭৯ একর জমি সংরক্ষিত জোনের আওতায় নেয়া হয়েছে। পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের খাস জমির দখলদার উচ্ছেদ করার। এসব জমিতে নির্মিত হবে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের স্থাপনা।
সরকারি সূত্র মতে কুয়াকাটায় সরকার নির্মাণ করতে যাচ্ছে একটি আন্তর্জাতিক মানের স্টেডিয়াম। একটি বিশ্ববিদ্যালয়। প্লে-গ্রাউন্ড, কনভেনশন সেন্টার। বিমানবন্দর। ওয়াচ টাওয়ার। আধুনিক হাসপাতাল। সুপার মার্কেট। সরকারি আধাসরকারী সকল অফিস। মিউজিয়াম। ফায়ার সার্ভিস। দর্শনীয় শহীদ মিনার, হেলি-প্যাড। চালু করা হবে হিস্টরিক সাইট। নির্মাণ হবে বাস-টার্মিনাল, লঞ্চঘাট। বিশেষ মার্কেট। ইকোপার্ক। মৎস্য মার্কেট। মেরিন পার্ক, মেরিন ড্রাইভ, টেনিস পার্ক। এমনকি সাব-জেল পর্যন্ত নির্মিত হবে।
এতোসব উন্নয়নের যাত্রা শুরু হবে ২০১৯ সালের মাঝামাঝি সময়। পর্যটন, গৃহায়ন ও গণপূর্তসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে আলীপুর মৎস্য-বন্দর থেকে কুয়াকাটা-গামী মহাসড়কের তুলাতলী স্পট থেকে একটি ডাবল লেনের উন্নত সড়ক পর্যটন পল্লী গঙ্গামতি পর্যন্ত যাওয়ার জন্য নির্মাণের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করেছে সরকার। কলাপাড়া থেকে কুয়াকাটা মহাসড়কের ২২ কিমি অংশে তিন নদীতে তিনটি আধুনিক সেতু নির্মিত হয়েছে এক বছরেরও বেশি আগে। ফেরি পারাপারের দূর্ভোগ লাঘব হয়েছে।
বর্তমানে কুয়াকাটায় যেতে তিনটি সেতু পার হতে হয়। যে কারণে উপজেলা সদর থেকে বিকল্প পথে কুয়াকাটায় যেতে ইতোমধ্যে বালিয়াতলী পয়েন্টে আন্ধারমানিক নদীতে নির্মাণ চলছে সৈয়দ নজরুল ইসলাম সেতু। বর্তমানে সেতুর পাইলের কাজ চলছে। ৮৯ কোটি ৮৩ লাখ টাকা ব্যয় এ সেতুটি নির্মাণ হচ্ছে। ১৩টি স্প্যানের ওপর ফুটপাথসহ ২৪ দশমিক এক ফুট প্রস্থ হচ্ছে সেতুটি। ৬৭৭ মিটার দীর্ঘ সেতুর রয়েছে দুই পাড়ে পাঁচ শ’ মিটার সংযোগ সড়ক।
পরিকল্পিত নগরায়নের জন্য ইতোমধ্যে কুয়াকাটা পৌরসভা এলাকায় যে কোন ধরনের ভবন নির্মাণে অনুমোদিত নক্সা-ডিজাইন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এসব ডিজাইন নক্সা অনুমোদন করলেই ভবন তোলার অনুমতি পাবেন নাগরিকরা। কুয়াকাটা পৌরসভার মধ্যে খালসহ যেসব খাস জমি অবৈধ দখলে রয়েছে তা উদ্ধারে ইতোমধ্যে জেলা প্রশাসন উদ্যোগ নিয়েছে। ইতোমধ্যে খাল দখল করে তোলা পাঁচটি স্থাপনা অপসারণে প্রশাসনিক পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।
একই স্পটে দাঁড়িয়ে সূর্যোদয়-সূর্যাস্তের মনোলোভা বিরল প্রাকৃতিক দৃশ্য অবলোকনের সুযোগ রয়েছে কুয়াকাটায়। দীর্ঘ পরিচ্ছন্ন সৈকতটির কিনার ঘেঁষা রয়েছে সবুজের সুন্দর আচ্ছাদন। নারিকেল বাগান, ঝাউবিথী। আর পশ্চিম ও পূর্বদিকের প্রান্তে রয়েছে সংরক্ষিত বনাঞ্চলের আরেক সৌন্দর্যময় স্পট। সুন্দরের প্রাকৃতিক লীলাভূমি কুয়াকাটাকে আধুনিক পর্যটন কেন্দ্রে উন্নয়নে ১৯৯৮ সালে তৎকালীন সরকার প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশেষ পরিকল্পনা হাতে নেয়।
পরবর্তীতে ২০০৯ সাল থেকে কুয়াকাটাকে পৌরসভায় উন্নীতের পরিকল্পনা সূচিত হয়। যা ২০১০ সালে পূর্ণতা পায়। কুয়াকাটায় আগত পর্যটকসহ স্থানীয় ব্যবসায়ী ও নাগরিকদের নিরাপত্তা বিধানে নৌ-পুলিশ ফাড়ি নির্মিত হয়। কার্যক্রম চালু হয় ট্যুরিস্ট পুলিশের। সর্বশেষ মহিপুর মৎস্য বন্দরে নির্মিত হয় পুলিশই থানা। ইতোমধ্যে প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে কুয়াকাটায় লগ্নি-কারকদের স্থাপনাসহ ভূ-সম্পত্তি এবং মানুষের জীবন ও সম্পদ রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ড কলাপাড়া সাগর-ঘেঁষা লতাচাপলী ও ধুলাসার দুই ইউনিয়নসহ কুয়াকাটা পৌর এলাকার রক্ষাকবচ ৩৯ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ পুনঃনির্মাণের কাজ শুরু করেছে। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে আধুনিকভাবে বন্যা কিংবা জলোচ্ছ্বাস প্রতিরোধের মতো করে পুনঃনির্মাণ করা হবে পুরো বাঁধটি। বাঁধটির উচ্চতা দেড় মিটার (পাঁচ ফুট) উঁচু করা হবে। সম্পূর্ণ বাঁধটির পাদদেশ বর্তমানের চেয়ে আরও ৩৫ ফুট প্রশস্ত করা হবে। বাঁধটি প্রায় ১২০ ফুট প্রস্থ করা হচ্ছে। এছাড়া সিসি ব্লক প্লেসিং করে রিভার সাইটে এক মিটার উঁচু করলে পাঁচ মিটার স্লোপ থাকছে। একই ভাবে কান্ট্রি সাইটে এক মিটার উচ্চতায় দুই মিটার স্লোপ থাকবে।
বাঁধটির আধুনিকায়নের মধ্যে টপে পর্যটকের ভ্রমণের জন্য ওয়াকিং জোন থাকবে। এর পাশে নির্দিষ্ট দূরত্বে থাকবে বড় ধরনের বেঞ্চি টাইপের সিসি ব্লক। যেখানে বসে আগতরা জমিয়ে আড্ডার পাশাপাশি স্বল্পকালীন বিশ্রামও নিতে পারবেন। এক কথায় দীর্ঘ বাঁধটি হবে দৃষ্টিনন্দন। এজন্য বিশ্ব ব্যাংক ইতোমধ্যে ১৪০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। কার্যাদেশও দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে ঠিকাদার চরম ঝুঁকিপূর্ণ চারটি পয়েন্টে জরুরি প্রটেকশন দিয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড কলাপাড়া সার্কেলের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ. আবুল খায়ের এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
তিনি আরও জানান, শুধু জলোচ্ছ্বাস ঠেকানো উদ্দেশ্য নয়। কুয়াকাটাকে পর্যটকের কাছে আকর্ষণীয় করতে এবং মানুষের জীবন ও সম্পদ রক্ষায় এমন মহা-পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। মোটকথা পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটাকে ঘিরে উন্নয়নের মহাযজ্ঞ চলছে। বদলে যাবে কুয়াকাটার চেহারা। কুয়াকাটা পৌরসভার মেয়র আব্দুল বারেক মোল্লা জানান, কুয়াকাটার সামগ্রিক উন্নয়নে মহা-পরিকল্পনার কাজ শুরুর দিনক্ষণের সঠিক তথ্য তিনি জানেন না। তবে পৌর এলাকায় শীঘ্রই পানি রিফাইন প্রকল্প যার মাধ্যমে বিশুদ্ধ পানি বাজারজাতকরণ এবং ওভার হেড ট্যাংকি স্থাপনের মাধ্যমে পৌরবাসীর পানির সরবরাহের কাজ শুরু হবে। নগরীর স্যানিটেশন উন্নয়নে ১০টি গণ শৌচাগার নির্মাণ এবং ১৩ কিমি ড্রেন নির্মাণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। একই সঙ্গে ১২কিমি সড়ক নির্মাণ কাজও হচ্ছে।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top