logo
news image

প্রত্ননাটক মহাস্থান মঞ্চস্থ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা।  ।  
বাংলাদেশের ঐহিত্যবাহী প্রত্ননিদর্শনের রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ইতিহাস বিষয়ের নাটক ‘মহাস্থান’ মঞ্চস্থ হলো। বাংলাদেশের নাটকের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় পরিসরে প্রত্ননাটকটি শুক্রবার (২৩ নভেম্বর) রাতে বগুড়ার ঐতিহাসিক নিদর্শন মহাস্থানগড়ে মঞ্চস্থ হয়।
বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি প্রযোজিত আড়াই ঘন্টার নাটক ‘মহাস্থান’-এর প্রথম প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. নাসির উদ্দিন আহমেদ। প্রধান অতিথি ছিলেন কথা সাহিত্যিক অধ্যাপক হাসান আজিজুল হক।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে হাসান আজিজুল হক বলেন, বগুড়া আমার খুব প্রিয় শহর। বগুড়ার মাটি যেমন উর্বর এর সংস্কৃতির ইতিহাসও অনেক পুরনো। মহাস্থান মুসলমান, বৌদ্ধ ও হিন্দু তিনটি সভ্যতার শিল্প পিঠস্থান। এই স্থানকে নিয়ে নির্মিত নাটকটি বিশেষ গুরুত্ববহ।
নাটকটির নির্দেশক লিয়াকত আলী লাকী বলেন, পৃথিবীতে এভাবে আর্কিও ড্রামার ইতিহাস নেই। এর কাজ প্রত্ন ইতিহাসকে দুশ্যকাব্যে রূপান্তরিত করে শিল্পে রূপ দেয়া। মহাস্থানের গৌরবোজ্জ্বল আখ্যানের ভিতর দিয়ে সমগ্র বাঙলার মহাস্থান হয়ে ওঠার গল্প। মহাস্থান হাজার হাজার বছর জুড়ে এ-মটির জেগে ওঠার কথামালা। হাজার হাজার বছর ধরে তার মানব বসতির কথা।
নাটকটির রচয়িতা সেলিম মোজহার বলেন, বাঙলার প্রাচীনতম রাজধানী পুন্ড্রনগরের ‘মহাস্থন’কে কেন্দ্রভূমিতে রেখে-মহামুনি গৌতম বুদ্ধের বাঙলায় আগমনকাল থেকে ১৯৭১-এর বাংলাদেশ কালব্যপ্তির এ-নাট্য-আখ্যানে পুরো গল্পটাকে এক সাথে বলার চেষ্টা হয়েছে। বাঙ্গালা অঞ্চলের ঐতিহাসিক, রাজনৈতিক সাংস্কৃতিক পট ও তার পরিবর্তনের ইতিহাসের ‘জানা ও জনপ্রিয়’ গল্পপ্রবাহ এ-নাটকে তুলে ধরা হয়েছে।
বাংলাদেশ শিল্পকলা একডেমি থেকে সংবাদ বিজ্ঞাপ্তিতে এ সব তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, নাটকটিতে ৩৫০ জন শিল্প-কলাকুশলী অভিনয় করেন। নাটকে প্রত্ন নিদর্শন মহাস্থানগড়ের রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ইতিহাস তুলে ধরা হয়। মহাস্থানগড়ের প্রাচীন ইতিহাসের সাথে সময়ের পরম্পরায় বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রাম পর্যন্ত সময়কালকে একক গ্রন্থনায় ফুটিয়ে তোলা হয় নাটকে।
প্রাচীন শিকারযুগ থেকে শুরু করে বৈদিকযুগ, আদিবাসি পর্ব, রামায়নের গীত, কালিদাসের কাব্য, চর্যাপদ, সুফিসামা, বৈষ্ণব পদাবলী, ব্রাহ্মসংগীত, লোকগান, বৃটিশ বিরোধী আন্দোলন, ব্রতচারীদের গান, পঞ্চকবির গান, ভাষা আন্দোলন এবং মহান মুক্তিযুদ্ধ পর্যন্ত ইতিহাস, কাব্য-গীত ও ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতা পালাগানরূপে নাটকে উঠে এসেছে।
আজ শরিবার নাটকটির দ্বিতীয় মঞ্চায়ন হবে একই স্থানে।

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top