logo
news image

রাষ্ট্রপতির সাথে ইসির সাক্ষাৎ-তফসিল বিষয়ে সিদ্ধান্ত ৪ নভেম্বর

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা।  ।  
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ আসন্ন একাদশ জাতীয় নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য নির্বাচন কমিশন (ইসি) এবং সংশ্লিষ্টদের আন্তরিক প্রয়াস অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়েছেন। বৃহস্পতিবার (১ নভেম্বর) সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বে নির্বাচন কমিশনের ছয় সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল রাষ্ট্র প্রধানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করলে তিনি এ নির্দেশনা দেন।
রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব জয়নাল আবেদিন বলেন, ‘বৈঠকে রাষ্ট্রপতি প্রযুক্তির ব্যবহার দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রযুক্তির অপব্যবহার রোধে সজাগ থাকার জন্য ইসিকে পরামর্শ দেন।’ রাষ্ট্রপতি হামিদ ইসি ও সংশ্লিষ্টদের নির্বাচনের কার্যক্রমে যেকোন ধরনের বিতর্ক এড়িয়ে চলারও পরামর্শ দেন। একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সকলের সমর্থন ও সহযোগিতায় অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন।
প্রেস সচিব বলেন, ভোটার তালিকা হালনাগাদ, সংসদীয় সীমানা পুনর্নির্ধারণ এবং নির্বাচনী প্রক্রিয়ার খুঁটিনাটিসহ আগামী জাতীয় সংসদের সার্বিক প্রস্তুতির বিষয়ে সিইসি রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেন।
নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, মো. রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী, নির্বাচন কমিশন সচিব হেলাল উদ্দিন আহমেদ ও রাষ্ট্রপতির সংশ্লিষ্ট সচিবগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, পরে সিইসি বঙ্গভবনের ফটকের সামনে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। এখানে তিনি রাষ্ট্রপতির সঙ্গে ইসি’র বৈঠককে একটি সৌজন্য সাক্ষাৎ হিসেবে উল্লেখ করেন এবং আগামী সাধারণ র্নিাচনের জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ বলে জানান। তিনি বলেন, ‘আগামী জাতীয় নির্বাচনের তফসিল চূড়ান্ত করার জন্য ইসি ৪ নভেম্বর বৈঠকে বসবে। আমরা নির্বাচনের সার্বিক প্রস্তুতি সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেছি মাত্র।’ সিইসি বলেন, বৈঠকে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রস্তুতির ব্যাপারে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

তফসিল বিষয়ে সিদ্ধান্ত ৪ নভেম্বর-সিইসি
আগামী ৪ নভেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।
বঙ্গভবনে বৃহস্পতিবার (১ নভেম্বর) রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের প্রতিনিধিদলের সাক্ষাতের পর প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা সাংবাদিকদের বলেন, ‘রাষ্ট্রপতির সঙ্গে তফসিলের তারিখ নিয়ে কোন আলোচনা হয়নি। আগামী চার নভেম্বর কমিশনের বৈঠক রয়েছে। এ বৈঠকে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা সম্পর্কে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। ওই দিনই নির্বাচনের দিন-তারিখ ঠিক করা হবে।’
চলমান রাজনৈতিক সংলাপে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরিকল্পনায় কোন প্রভাব পড়বে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ‘চলমান রাজনৈতিক সংলাপে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের পরিকল্পনায় কোন প্রভাব পড়বে না। ইসির সকল প্রস্তুতি রয়েছে। ইচ্ছে করলে ৭ দিনে মধ্যেই নির্বাচন করা সম্ভব।’
তিনি বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করা হয়েছে। ভোটার তালিকা, ভোট কেন্দ্রসহ সার্বিক প্রস্তুতি সম্পর্কে তিনি অবগত হয়েছেন এবং ইসির প্রস্তুতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।
অপর এক প্রশ্নের জবাবে কে এম নুরুল হুদা বলেন, ‘সংবিধানে যেভাবে বলা আছে সেভাবেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আমাদের আস্থা ও বিশ্বাস রয়েছে, সব রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে বলে ইসি আশাবাদী।’
অপর এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, বিএনপি’র গঠনতন্ত্রের ব্যাপারে হাইকোর্টের নির্দেশনা কমিশনে পৌছেছে। এ ব্যাপারে কমিশন সভা করে সিদ্ধান্ত নেবে।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য