logo
news image

বড়াইগ্রামে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল স্কুলছাত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, বড়াইগ্রাম (নাটোর)।  ।  
নাটোরের বড়াইগ্রামে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে জুলেখা খাতুন (১৫) নামে এক স্কুলছাত্রী বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে। বুধবার (২৪ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলার নগর ইউনিয়নের দ্বারিখৈর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জুলেখা ওই গ্রামের জিয়ারুল ইসলামের মেয়ে এবং দেওশিন উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির মেধাবী ছাত্রী।
উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রাশেদা পারভীন জানান, বুধবার দুপুরে ১০৯ নম্বর থেকে ইউএনও আনোয়ার পারভেজের কাছে জুলেখার বাল্যবিয়ে সংক্রান্ত খবর আসে। খবর পেয়ে তিনি সহ ইউএনও ঘটনাস্থলে গিয়ে খবরের সত্যতা পান। তখন আত্মীয়-স্বজনদের খাবার পরিবেশন চলছিল। পুলিশসহ ইউএনওর উপস্থিতিতে তারা খাবার ফেলে পালিয়ে যায়। পরে লোক মাধ্যম খবর পাঠিয়ে অভিভাবক এবং স্থানীয় প্রধানদের উপস্থিতিতে মুচলেকা দিয়ে বিয়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়।
এদিকে জুলেখার মা মর্জিনা বেগম জানান, তারা গরিব মানুষ, মেয়ে অত্যন্ত মেধাবী ছাত্রী। কষ্ট করে হলেও তাকে পড়া-লেখা করানো ইচ্ছে ছিল। কিন্তু স্থানীয় এক বখাটে যুবক দীর্ঘদিন থেকে জুলেখার স্কুলে যাওয়া-আসার পথে উত্যক্ত করে এবং তুলে নেওয়ার হুমকি দেয়। গরিব হওয়ায় প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছিলেন না তারা। তাই মেয়ের বিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া নেন।
ইউএনও আনোয়ার পারভেজ বলেন, খবর পেয়ে মেয়ে পক্ষের মুচলেকা নিয়ে বিয়ে বন্ধ করা হয়েছে। বর পক্ষকে মোবাইল মাধ্যম নিষেধ করা হয়েছে। আর জুলেখার মায়ের বর্ণনা মোতাবেক অভিযুক্ত বখাটের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top