logo
news image

নাটোর মেলায় গণশুনানী-তাৎক্ষণিক সমাধান

নাটোর উন্নয়ন মেলায় তাৎক্ষণিক সমাধান
নিজস্ব প্রতিবেদক।  ।  
নাটোরের কানাইখালি মাঠে উন্নয়ন মেলায় প্রবেশ করতেই হাতের বামে দেখা মিলবে ছোট্ট একটি স্টলের। সদর উপজেলা প্রশাসনের এই স্টলে বসেই সাধারণ মানুষের কথা শুনে গণ শুনানি শেষে সকল সমস্যার সমাধান করে দিচ্ছেন সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন আক্তার বানু। যেগুলোর তাৎক্ষণিক সমাধান সম্ভব নয়, সেগুলোর বিষয়ে দেওয়া হচ্ছে পরামর্শ। তবে গণশুনানি কাজে সহযোগিতা করছে টিআইবির সচেতন নাগরিক কমিটি। তারা প্রতিটি ভুক্তভোগির কথা লিপিবদ্ধ করে রাখছে।
শুক্রবার (৫ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১২টা। গুরুদাসপুর উপজেলার আব্দুল হালিম হাজীর ছেলে বারকুল্লাহ এসেছেন নিজেদের জমি ফিরে পেতে। জমি দখল থেকে বেদখল হয়ে যাওয়ার পর ফিরে পেতে কি করনীয় সে সম্পর্কে জানতে চান তিনি। তপ্ত রোধ আর গরমের মধ্যে স্টলে বসেই বারকুল্লাহ সকল সমস্যার কথা শুনেন ইউএনও। পরে শুনানী শেষে জমি ফিরে পেতে আদালতে মামলা দায়েরের পরামর্শ দেওয়া হয়।
সিংড়া উপজেলার আব্দুস সেলিম সরদারের ছেলে হাবিবুর রহমান। তাদের জমির ওপর এলজিইডি গাছ রোপন করে। পরবর্তীতে তারা গাছ কেটে ফেলে, যা তাদেরকে জানানো হয়নি। এমন সমস্যার কথা শুনে ইউএনও জেসমিন আক্তার বানু, সিংড়া উপজেলার নির্বাহী অফিসারের সাথে কথা বলার জন্য পরামর্শ দেন।
সদর উপজেলার ঘোরাগাছা এলাার আশরাফ আলী। পাঁচ বছর আগে মদনহাট এলাকার কলিমুদ্দিনের ছেলে আজম আলী এবং ছৈমুদ্দিনের ছেলে মিন্টু চাকরী দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ১লাখ ৬০হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। প্রতারক চক্রটি চাকরি দেওয়ার কথা বলে টাকা নিলেও চাকরি দিতে না পারায় টাকা ফেরত দিচ্ছেনা। এই সমস্যা সমাধানের জন্য মেলার শুরুর দিন (৪আক্টোবর) এসেছিলেন সমাধানের জন্য। দীর্ঘ সময় ধরে ভুক্তভোগি আশরাফ আলীর বক্তব্য শুনে তাকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেন ইউএনও। এখন সে পরামর্শ অনুযায়ী কাজ করছেন তিনি।
এ বিষয়ে আশরাফ আলী বলেন, মেলায় গিয়েছিলাম ঘুরার জন্য। পরে নিজের সমস্যার কথা শুনে ইএনও স্যার প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়েছে। তার তাৎক্ষনিক পরামর্শের ভিত্তিতেই আমি এখন যাবতীয় কাজগুলো করছি। আশা করি প্রতারক চক্রের শাস্তির পাশাপাশি আমার টাকা গুলো ফেরত পাবো।
গত ৪ অক্টোবর থেকে মেলা শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত গণশুনানী করে ২০টি সমস্যার সমাধান করা হয়েছে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলছে এই গণশুনানী।
এবিষয়ে সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন আক্তার বানু বলেন, সরকারের উন্নয়ন প্রচার নিয়ে তিন দিনের এই মেলায় অনেক ভুক্তভোগি দর্শক মেলা দেখতে আসে। এবারই প্রথম মেলায় গণশুনানির ব্যবস্থা করা হয়েছে। মেলা দেখতে এসেও যে কোন বিষয়ে ভুক্তভোগি আমাদের স্টলে এসে তার সমস্যার কথা জানাতে পারে। তাৎক্ষনিক শুনানি শেষে আমরা সে ভুক্তভোগির সমস্যা সমাধান করে দিচ্ছি। তাছাড়া যে গুলো তাৎক্ষনিক সমাধানযোগ্য নয়, সেগুলো বিষয়ে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।
টিআইবির সচেতন নাগরিক কমিটির এ্যালাক ফ্যাসিলিটেটর কামরুজ্জামান মাসুদ বলেন, তাদের কাছে নাটোর পৌর এলাকার বাসিন্দা লিজা আক্তার নামের এক মহিলা তার জন্ম নিবন্ধনের তারিখ সংশোধন করতে গিয়ে অনেক হয়রানীর শিকার হয়েছেন বলে জানান। তার কাছে অতিরিক্ত টাকাও চাওয়া হয়েছে। বিষয়টি ইউএনও স্যারকে জানাননোর পর তিনি সবকিছু শুনে তার সমস্যার সমাধানে পরামর্শ দিয়েছেন।
সিংড়া উপজেলার আব্দুস সেলিম সরদারের ছেলে হাবিবুর রহমান। তাদের জমির ওপর এলজিইডি গাছ রোপন করে। পরবর্তীতে তারা গাছ কেটে ফেলে, যা তাদেরকে জানানো হয়নি। এমন সমস্যার কথা শুনে ইউএনও জেসমিন আক্তার বানু, সিংড়া উপজেলার নির্বাহী অফিসারের সাথে কথা বলার জন্য পরামর্শ দেন। এছাড়াও আরো কয়েকটি অভিযোগ এসেছে মেলার স্টল থেকে ইউএনও স্যার সেগুলোরও পর্যায়ক্রমে শুনানী করে সমাধান দেবেন।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top