logo
news image

এখনো মঞ্চ মাতিয়ে ফেরেন

বিনোদন ডেস্ক।  ।  
শাকিরা,মারায়া ক্যারি, জেনিফার লোপেজ, সেলিন ডিওন, শানায়া টোয়েইন ও ম্যাডোনাশাকিরা,মারায়া ক্যারি, জেনিফার লোপেজ, সেলিন ডিওন, শানায়া টোয়েইন ও ম্যাডোনাবয়স চল্লিশ ছুঁলেই কেমন যেন বুড়িয়ে যায় দেহ। সঙ্গে কণ্ঠটাও। কিন্তু কই? তাঁদের তো তেমন হলো না। এখনো যেন মনে হয় ষোড়শীর কণ্ঠে সুর বাজে। নইলে কি আর মঞ্চ মাতে! ক্যারিয়ারটা ধুপ করে পড়ে যাওয়ার ভয় নেই তাঁদের। দেখে মনে হয়, তাঁরা আরও আত্মবিশ্বাসী, আরও প্রত্যয়ী। মাত্র যেন শুরু। এমনভাবেই গড়ে উঠেছেন চল্লিশোর্ধ্ব গায়িকারা। ম্যাডোনা থেকে শুরু করে হালের শাকিরা, বয়স তাঁদের চল্লিশের ওপরে। বিশ্বাস করুন আর না-ই করুন। তবু তাঁরা এখনো হাজার হাজার দর্শক-শ্রোতার সামনে মঞ্চ মাতিয়ে ঘরে ফেরেন। সঙ্গে থাকে করতালি আর ভালোবাসা।
শাকিরা
বয়স ৪১। সাত বছর বিরতি দিয়ে ফিরেছেন মঞ্চে। এখনো চলছে কলম্বিয়ান পপ তারকা শাকিরার ‘এলডোরাডো ট্যুর’ কনসার্ট। শাকিরার নতুন অ্যালবাম এলডোরাডোর জন্যই এই ভ্রমণ। এর মধ্যেই গানগুলো বেশ সাড়া ফেলেছে। সফল হচ্ছে শাকিরার ট্যুর। মঞ্চের সামনে ভক্তদের উচ্ছ্বাস বারবার সে কথাই জানান দিচ্ছে। অন্য সব পুরস্কার বাদ দিলাম। শাকিরার আছে ৪টি গিনেজ বিশ্ব রেকর্ড। গান, অ্যালবাম, এমনকি ফেসবুকে লাইকের জন্য পেয়েছেন এই সম্মান।
মারায়া ক্যারি
কথা ছিল এ বছর ফেব্রুয়ারিতেই ‘হ্যাশট্যাগ ওয়ান’ কনসার্ট শুরু করবেন। কিন্তু হঠাৎ করে সিদ্ধান্ত বদলান মার্কিন সংগীত তারকা মারায়া ক্যারি। তারিখ পিছিয়ে নিয়ে গেছেন অক্টোবরে। ৪৮ বছর বয়সে অভিজ্ঞতাটা যে ঝানু, হয়তো সেটার প্রমাণ করতে চাইছেন। তবে ২০১৬ সালে তাঁর সবশেষ কনসার্টের কথা তো কেউ ভুলে যায়নি। সফল হয়েছিলেন তখনো। ১৪টি বিলবোর্ড, ৫টি গ্র্যামি, আর বাকি পুরস্কারের কথা নাহয় না-ই বললাম। গুনে শেষ হবে না।
জেনিফার লোপেজ
এই ৪৯ বছর বয়সে শুধু গান না, অভিনয় আর নাচ দিয়েও ভক্তদের মন জয় করেছেন জেনিফার লোপেজ। তাই সবকিছুর মিশেলে মঞ্চটা কী করে মাতিয়ে রাখতে হয়, তা তিনি খুব ভালো জানেন। তাঁর মোট পুরস্কারের সংখ্যা ১২০। খ্যাতির কথা কি আর বলতে হবে? এখনো নিয়মিত কনসার্ট করছেন মার্কিন এই সংগীত তারকা।
সেলিন ডিওন
‘মাই হার্ট উইল গো অন’, টাইটানিক ছবির সেই বিখ্যাত গান গেয়েছিলেন সেলিন ডিওন। ৫০ বছর বয়সে এসেও গানটা ঠিক সে রকমই লাগে কানাডিয়ান এই নারীর কণ্ঠে। এখন ব্যস্ত আছেন ‘সেলিন ডিওন লাইভ ২০১৮’ কনসার্ট নিয়ে। দুই বছর আগে ক্যানসার আক্রান্ত স্বামী মারা গেলে নিজেকে সামলে খুব শক্ত মনোবল নিয়ে গানের মাঠে আবার নামেন সেলিন।
শানায়া টোয়েইন
আরেক কানাডিয়ান সংগীত তারকা শানায়া টোয়েইন। বয়স তাঁর ৫২। অথচ মঞ্চে যেন কচি খুকি। বয়স যখন একটু বেশি, পুরস্কারের থলেটাও ভারী। সব মিলিয়ে ১৮৮টা পুরস্কার আছে সেই থলেতে। সম্প্রতি শেষ করলেন তাঁর ‘নাও ট্যুর’। পঞ্চম স্টুডিও অ্যালবাম নাও-এর জন্য করেছেন এই কনসার্ট। তবে শেষ হইয়াও হইল না শেষ। কারণ, ডিসেম্বরে এই ট্যুরের আরও একটি কনসার্ট বাকি আছে। কিছুটা জিরিয়ে নিচ্ছেন ‘কা-চিং’ গানের সফল তারকা।
ম্যাডোনা
তাঁকে বলা হয় পপসম্রাজ্ঞী। অনেকে বলেন ফ্যাশন আইকন। গানের পাশাপাশি করেছেন অভিনয়, মন দিয়েছেন ব্যবসায়ও। ঝানু ব্যক্তি বলেই তো ৬০ ছুঁই-ছুঁই বয়সে এসেও মঞ্চটাকে মাতাতে জানেন। মার্কিন পপ তারকা ম্যাডোনার ঘরে শোভা পায় ২৯২টি পুরস্কার। তাঁর খ্যাতির সঙ্গে পরিচয় আছে পুরো বিশ্বের। তিনি মঞ্চে উঠলে স্বাভাবিকভাবেই মনে হয় যেন গানের সম্রাজ্ঞী। শুধু কনসার্ট নয়, অ্যাওয়ার্ড শোগুলোর মঞ্চেও নিয়মিত দেখা যায় ম্যাডোনাকে। গিনেজ রেকর্ড তো আগেই বলেছে, সবচেয়ে বেশি আয় করা গায়িকা তিনি।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top