logo
news image

শিশুদের কত সুন্দর সুন্দর ব্যাগ

সঠিক ব্যাগ চাই স্কুল মানেই বই, খাতা, কত কী সঙ্গে নিতে হয়। এসব বহন করার জন্য বাজারে রয়েছে কত সুন্দর সুন্দর ব্যাগ। ছোট্ট শিশুটির ওজনের সাথে ব্যাগের সাইজ, ওজন ঠিক আছে কি-না তা খুবই জরুরি। ব্যাগ বেশি বড় হলে তাতে একগাদা বই খাতাসহ অন্যান্য জিনিস ঢুকিয়ে ভারি করে ফেললে তা ছোট শিশুর ঘাড়, পিঠ এবং মেরুদণ্ডে অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করে। এতে শিশুর হাড়ের গঠনে ক্ষতি করতে পারে। ব্যাগের ওজন ১৯৯৫ সালে জার্মানিতে পিঠের স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে এজিআর নামের একটি সংস্থা গঠিত হয়। তাদের পরামর্শ, স্কুল ব্যাগ কেনার সময় সবচেয়ে জরুরি হচ্ছে খালি ব্যাগের ওজন যেন ১.৩ কেজির বেশি না হয়। অর্থাৎ ব্যাগ যেন শিশুর কাছে লোড বা ‘বোঝা’ মনে না হয়। বোঝা ব্যাপারটা কিছুটা অনেক সময় নির্ভর করে শিশুর শরীরের ওজনের ওপরেও। স্বাস্থ্যবান শিশুর জন্য ওজন ততোটা খারাপ না হলেও দুর্বল শিশুর জন্য তা অবশ্যই ক্ষতিকর। 

স্কুল ব্যাগের দু’পাশের বেল্টগুলো যেন ৪ সেন্টিমিটার চওড়া এবং নন-স্লিপ হয়, তাছাড়া বেল্টের প্যাড সামান্য মোটা ও ছোট-বড় করার ভালো সুবিধা থাকলে শিশুদের মেরুদণ্ডে চাপ কম পড়ে এবং শ্বাসকষ্টও কম হয়। ব্যাগের ভেতরে কী? শুধু সুন্দর এবং উপযুক্ত ব্যাগ হলেই যথেষ্ট নয়। লক্ষ্য রাখতে হবে ব্যাগের ভেতরে যেন প্রয়োজনের বেশি কোনো জিনিসই না ঢোকানো হয়। অর্থাৎ প্রতিদিনই নতুন করে প্যাকিং করতে হবে। শুধু সেদিনের প্রয়োজনীয় বই-খাতা ও দরকারি জিনিসই থাকবে পিঠে নেওয়ার ব্যাগের ভেতর, তার বেশি কিছুই নয়! বাড়তি ওজন মানেই শিশুর মেরুদণ্ড, ঘাড়, পিঠের জন্য বাড়তি চাপ। এতে ক্ষতি হয়ে যেতে পারে শিশুর স্বাস্থ্য।

ছোট শিশুদের স্কুলব্যাগের হ্যান্ডেলটিও হতে হবে আরামদায়ক। যাতে ছোট ছোট শিশুরা সহজে হ্যান্ডেল করতে পারে। পছন্দের ব্যাকপ্যাক প্রাইমারী স্কুল পর্যন্ত বাচ্চারা সাধারণ স্কুলব্যাগ নিতে তেমন আপত্তি না করলেও একটু বড় হওয়ার সাথে সাথে ওদের বন্ধুদের মতো নিজেদের পছন্দের ব্যাগই কিনতে চায়। এক্ষেত্রে এজিআর সংস্থার পরামর্শ অসুবিধা নেই, আজকাল বাজারে স্বাস্থ্যসম্মত বা পিঠের জন্য নমনীয় অনেক ব্যাকপ্যাকই পাওয়া যায়।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top