logo
news image

জানুয়ারির দলবদলে আরও চমক?

বরাবরের মতো দল পাল্টানোর হিড়িক পড়তে পারে। চেলসির স্কোয়াডে পরিবর্তন চাচ্ছেন কোচ আন্তনিও কন্তে। ‘সানডে টাইমস’ জানিয়েছে, কন্তে খুশিমনেই ছেড়ে দিতে চান রক্ষণভাগের ‘দেয়াল’ ডেভিড লুইজকে। স্ট্রাইকার মিকি বাৎসুয়াইকে ছেড়ে দিতেও তাঁর কোনো সমস্যা নেই। কন্তে ক্লাব পরিচালকদের জানিয়ে দিয়েছেন, চলার পথে তাঁদের আর প্রয়োজন নেই। স্টামফোর্ড ব্রিজে ইতালিয়ানের চাকরিটাও যে নিশ্চিত, সেটাও কিন্তু জোর দিয়ে বলা যাচ্ছে না। চেলসিতে কোচদের যেকোনো সময়ে ছাঁটাই হওয়া ইতিহাস বেশ সমৃদ্ধ!

সে ক্ষেত্রে কন্তের সম্ভাব্য বিকল্প হিসেবে উঠে এসেছে ডিয়েগো সিমিওনের নাম। অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে খোলনলচে পাল্টে দেওয়া এ আর্জেন্টাইনকে চেলসি বসাতে চায় নিজেদের ডাগ আউটে। ওদিকে কন্তেও নাকি বসে নেই। দুই মিলানকে জড়িয়ে তাঁর নাম শোনা যাচ্ছে।
চেলসিতে কন্তের জায়গায় দেখা যেতে পারে সিমিওনেকে। ছবি: এএফপিচেলসিতে কন্তের জায়গায় দেখা যেতে পারে সিমিওনেকে। ছবি: এএফপিম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের নজর পড়েছে সেল্টিকের ২০ বছর বয়সী এক ডিফেন্ডারের ওপর। কেইরান টিয়ের্নি। সঙ্গে ফুলহামের রয়্যান স্যাসেজনের ওপরও চোখ পড়েছে ইউনাইটেডের। তবে অ্যালেক্স সান্দ্রোর ওপর আশা হারাননি দলটির কোচ হোসে মরিনহো। পর্তুগিজের একটাই লক্ষ্য—লেফট ব্যাক। ওদিকে ইউনাইটেড ছাড়তে পারেন হেনরি মাখিতারিয়ান। ফর্মটা ভালো যাচ্ছে না। ইংল্যান্ডের বাতাসে গুজব উঠেছে, মাখিতারিয়ানকে দেড় মৌসুমের জন্য ধার নেবে ইন্টার মিলান।
এদিকে আর্সেনাল পড়েছে অকূলপাথারে! দলের দুই প্রাণভোমরা মেসুত ওজিল এবং অ্যালেক্সি সানচেজ নতুন চুক্তিতে রাজি নন। তাঁদের সঙ্গে ‘জোট’ বেঁধেছেন থিও ওয়ালকট। তাঁর লক্ষ্য এসি মিলান। কুতিনহোকে হারিয়ে লিভারপুল কিনতে চায় থমাস লেমারকে। এদিকে সার্জিও আগুয়েরো যে ম্যানচেস্টার সিটি ছাড়ছেন, তা প্রায় নিশ্চিত। আর্জেন্টাইন এ স্ট্রাইকারকে সিটি এক শর্তে বিক্রি করতে চায় রিয়াল মাদ্রিদের কাছে। ‘দারিও গোল’ জানিয়েছে, রিয়াল যদি তাদের গোলরক্ষক কেইলর নাভাসকে দেয়, তবেই আগুয়েরোকে ছাড়া হবে। নাভাস আসবেন ক্লদিও ব্রাভোর বিনিময়ে।
আর্সেনালে নতুন চুক্তিতে রাজি নন ওজিল-সানচেজ। ছবি: এএফপিআর্সেনালে নতুন চুক্তিতে রাজি নন ওজিল-সানচেজ। ছবি: এএফপিরিয়ালেও বাজছে বিদায় রাগিণী। দানি সেবাওস খুব একটা সুযোগ পাচ্ছেন না জিনেদিন জিদানের দলে। স্প্যানিশ মিডফিল্ডারটি যোগ দিতে লিভারপুলে। লেমারকে না পারলে তাকে ধারে দলে টানতে পারেন লিভারপুল কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপ। অ্যাথলেটিকো বিলবাও গোলরক্ষক কেপা যে রিয়ালে আসছেন, তা মোটামুটি নিশ্চিত। তিমো ওয়ের্নারের ওপরও চোখ রয়েছে রিয়ালের। রক্ষণভাগে রিয়াল-বার্সা দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীরই পছন্দ ডেভিড লুইজ।
তবে এসবই সম্ভাবনা। ফুটবলার বিকিকিনির বাজারে কখন কী ঘটবে, তা আগে থেকে বলা কঠিন। কিন্তু এটা বলা যায়, এবার শীতকালীন দলবদলে সম্ভবত কুতিনহোই একমাত্র ‘বড়’ ট্রান্সফার নয়, সামনে আরও চমক আছে!

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top